kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

পাঁচ বছর পাওয়ার আশা

১৫ বিলিয়ন ডলার সহায়তা মিলবে এডিবির

♦ ৫১ বছরের যাত্রায় কখনো ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হয়নি বাংলাদেশ
♦ বর্তমানে দেশে এডিবির অর্থায়ন ২৭.৬ বিলিয়ন ডলার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১৫ বিলিয়ন ডলার সহায়তা মিলবে এডিবির

এডিবি প্রেসিডেন্ট মাসাতসুগু আসাকাওয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের কাছ থেকে আগামী পাঁচ বছরে ১৫ বিলিয়ন ডলার পাওয়ার আশা করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। মঙ্গলবার ম্যানিলায় এডিবি প্রেসিডেন্ট মাসাতসুগু আসাকাওয়ার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে তিনি এই আশা প্রকাশ করেন। বৈঠকে মন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশের ৫১ বছরের যাত্রায় কোনো দিন ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হয়নি।

এদিকে বার্ষিক সভার অংশ হিসেবে এডিবির সদর দপ্তরে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে স্বাগত দেশ ফিলিপাইনের অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদলের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এডিবির প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠক

এডিবির প্রেসিডেন্ট মাসাতসুগু আসাকাওয়ার সঙ্গে বৈঠকে অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে এডিবির ক্রমবর্ধমান অর্থায়ন দাঁড়িয়েছে ২৭.৬ বিলিয়ন ডলার। যার মধ্যে মোট বকেয়া ১১.৬৯ বিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশ অত্যন্ত সক্ষমতার সঙ্গে নিয়মিত ঋণ পরিশোধ করে চলেছে। বাংলাদেশের ৫১ বছরের যাত্রায় কখনোই দেশি-বিদেশি ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হয়নি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ-এডিবি কান্ট্রি পার্টনারশিপ স্ট্র্যাটেজি (২০২১-২৫) জাতীয় উন্নয়ন ও লক্ষ্যগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করে তৈরি করা হয়েছে, যা আগামী পাঁচ বছরে আমাদের জন্য ১২-১৫ বিলিয়ন ডলার ঋণ সহায়তার জোগান থাকবে বলে আশা করা যায়। আমাদের উন্নয়নের মাইলফলক অর্জনে এডিবির ক্রমাগত সমর্থন বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ’ এডিবি প্রেসিডেন্ট মাসাতসুগু আসাকাওয়া বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি ও সক্ষমতার ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ বাংলাদেশের সক্ষমতার একটি প্রতীক। এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় নেতৃত্বের বিশেষ প্রশংসা করেন। কভিড-১৯ মহামারির কারণে সৃষ্ট স্বাস্থ্যগত ও আর্থ-সামাজিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাংলাদেশ গৃহীত পদক্ষেপ এবং টিকা কার্যক্রমেরও প্রশংসা করেন।

ফিলিপাইনের অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক

বৈঠকে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ও ফিলিপাইনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের সম্পূর্ণ সম্ভাবনা এখনো পুরোপুরি উন্মোচিত হয়নি। দুই দেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের পরিমাণ এখন মাত্র ১০৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। দুই দেশের মধ্যে অবিলম্বে সহযোগিতার সম্ভাব্য ক্ষেত্রগুলো হতে পারে ওষুধ, কৃষিপণ্য, হালকা প্রকৌশল, পাট এবং পাটজাত পণ্য ইত্যাদি। উভয় পক্ষ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, স্বাস্থ্যসেবা, নার্সিং এবং আইটি ক্ষেত্রেও সহযোগিতা করে লাভবান হতে পারে।

খাদ্যসংকট মোকাবেলায় অর্থায়ন

এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে দীর্ঘমেয়াদি খাদ্য নিরাপত্তা বাড়াতে ১৪ বিলিয়ন ডলার দেবে এডিবি, যা টাকার অঙ্কে এক লাখ ৪৪ হাজার ২০০ কোটি টাকা (প্রতি ডলার ১০৩ টাকা দরে)। গতকাল মঙ্গলবার সংস্থাটির প্রধান কার্যালয় ম্যানিলা থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। দক্ষিণ এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ক্রমবর্ধমান খাদ্যসংকট মোকাবেলায় আগামী তিন বছরে (২০২২-২৫) ১৪ বিলিয়ন ডলার অর্থায়নের ঘোষণা দেয় সংস্থাটি। এডিবির ৫৫তম বার্ষিক সভায় এই অর্থায়নের বিষয়টির অনুমোদন করা হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই অর্থায়নে খাদ্যসংকট মোকাবেলায় দীর্ঘ মেয়াদে উন্নতি করার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তন ও জীববৈচিত্র্যের ক্ষতির প্রভাবের বিরুদ্ধে খাদ্যব্যবস্থা শক্তিশালী করার মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদি খাদ্য নিরাপত্তা জোরদার করতে এই অর্থ ব্যবহার করতে পারবে বাংলাদেশসহ এডিবির সদস্যভুক্ত দেশগুলো।

এডিবি জানায়, এই অঞ্চলে খাদ্য নিরাপত্তার জন্য এডিবি উল্লেখযোগ্য অবদান রেখে চলছে। এশিয়ায় ১.১ বিলিয়ন মানুষ নিম্ন আয়ের। ফলে এই অঞ্চলগুলোতে দামের কারণে স্বাস্থ্যকর খাবারের অভাব রয়েছে। এটা আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে।



সাতদিনের সেরা