kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী বললেন

বেসরকারি খাতে দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে ১৫ পাটকল

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২৫ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আবারও পাটের সুদিন ফিরে আসছে উল্লেখ করে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক বলেছেন, কৃষক যখন একেকটি পাটগাছ রোপণ করেন, সেগুলো শুধু একেকটি পাটগাছ নয়, সেগুলো একেকটি ডলার। পাট এখন আমাদের অর্থনীতিতে সবচেয়ে বেশি ভ্যালু অ্যাডেড পণ্য। গতকাল মঙ্গলবার  চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া বেসরকারি খাতে বরাদ্দ দেওয়া কেএফডি জুটমিল পরিদর্শনের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়সভায়  মন্ত্রী এসব কথা বলেন। পাটমন্ত্রী বলেন, ‘সারা পৃথিবী এখন পরিবেশবান্ধব বিভিন্ন উদ্যোগ নিচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

প্লাস্টিক নিষিদ্ধ করা হয়েছে বিভিন্ন দেশে। আমাদের দেশেও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এখন আমরা পাটের তন্তু দিয়ে ব্যাগ, কার্পেট বানাচ্ছি। পাটের পণ্য রপ্তানি করছি। করোনার সময় দুই বছর আমাদের প্রবৃদ্ধি ছিল ২০ শতাংশ, অর্থাৎ তখনো আমরা ২০ শতাংশ পাটপণ্য রপ্তানি করেছি। এখন পুরোদমে কারখানাগুলোতে কার্যক্রম চলছে। সুতরাং পাটের সুদিন ফিরছে। ’

এ সময় মন্ত্রী আরো বলেন, ‘পাট থেকে সুতা তৈরি হচ্ছে। সেটা আমরা রপ্তানি করছি। পাটখড়ি থেকে চারকোল উৎপাদন করে সেটা চীনে রপ্তানি করছি। পাটের তন্তু এবং পাটখড়ি দুটিই আমরা রপ্তানি করছি। এভাবে পাট খাত এগিয়ে যাবে। পাকিস্তান আমলে পাট ছিল প্রধান আয়ের উৎস। স্বাধীনতার ৫০ বছর পর পাট খাতে আবারও একটা জাগরণ তৈরি হয়েছে। ’

মন্ত্রী বলেন, ‘১৫টি পাটকল বেসরকারি খাতে দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। টেন্ডার করা হয়েছে। আগামীকাল (বুধবার) জমা দেওয়ার শেষ দিন। ১৮টি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ৫৩টি প্রস্তাবনা পাওয়া গেছে। প্রস্তাবনা যাচাই-বাছাই করে আমরা এই ১৫টি মিলও প্রাইভেটে দিয়ে দেব। ’ বন্ধ ঘোষিত পাটকলের শ্রমিকদের পাওনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বেশির ভাগ শ্রমিকের পাওনা পরিশোধ করেছি। আইডি কার্ড, মামলাজনিত সমস্যার কারণে কিছু শ্রমিক টাকা পাননি। মামলা নিরসন হলে টাকা পেয়ে যাবেন। ’



সাতদিনের সেরা