kalerkantho

মঙ্গলবার ।  ২৪ মে ২০২২ । ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২২ শাওয়াল ১৪৪৩  

তামাক পণ্যে কার্যকর করারোপের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তামাক পণ্যে কার্যকর করারোপের দাবি

সিগারেটের দাম উল্লেখযোগ্য মাত্রায় বাড়ানো গেলে ৩০ শতাংশ ধূমপায়ী সিগারেট ছেড়ে দিতে চেষ্টা করবে। আরো ৩০ শতাংশ সিগারেট ব্যবহার কমিয়ে দেবে। এ ছাড়া সিগারেটের দাম বাড়ানো হলেও ৭১ শতাংশ মানুষ আগের মতো সিগারেট ব্যবহার অব্যাহত রাখতে খাদ্য বাবদ ব্যয় কমাবে না।

গতকাল বুধবার বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে উন্নয়ন সমন্বয় পরিচালিত ‘তামাক পণ্যে কর বৃদ্ধির সম্ভাব্য প্রভাব’ শীর্ষক জরিপের ফল প্রকাশ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনাসভায় এ পরিসংখ্যানগুলো তুলে ধরা হয়।

বিজ্ঞাপন

গত নভেম্বর ২০২১-এ দেশের পাঁচটি জেলার ৬৫০টি তামাক ব্যবহারকারী নিম্ন আয়ের পরিবারের ওপর এই জরিপ পরিচালিত হয়েছে।

সভায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর এবং উন্নয়ন সমন্বয়ের সভাপতি অধ্যাপক ড. আতিউর রহমানের সভাপতিত্বে প্যানেল আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিরাজগঞ্জ-২ আসনের এমপি অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত এবং গাইবান্ধা-১-এর এমপি ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী। প্যানেল আলোচক হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের সমন্বয়কারী হোসেন আলী খোন্দকার এবং সিটিএফকে, বাংলাদেশের লিড পলিসি অ্যাডভাইজার মো. মোস্তাফিজুর রহমান। এ ছাড়া বিভিন্ন তামাকবিরোধী সংস্থার প্রতিনিধি ও গবেষকরা আলোচনায় অংশ নেন।

তামাক পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির ফলে খাদ্য বা অন্য পণ্য বাবদ ব্যয় কমিয়ে দেওয়ার সম্ভাবনা নিতান্ত কম বলে আলোচকরা অভিমত ব্যক্ত করেন। তাই সংসদ সদস্য, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, তামাকবিরোধী সামাজিক সংস্থাসহ সব অংশীজনের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় তামাক পণ্যে কার্যকর করারোপ নিশ্চিত করার উদ্যোগ নেওয়া উচিত বলে তাঁরা মনে করেন।



সাতদিনের সেরা