kalerkantho

মঙ্গলবার ।  ২৪ মে ২০২২ । ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২২ শাওয়াল ১৪৪৩  

ব্যাংকের বেতন পুনর্বিবেচনার দাবি

গভর্নরের সঙ্গে বিএবি ও এবিবির নেতাদের বৈঠক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশ ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া ব্যাংকারদের ন্যূনতম বেতন কাঠামো বাস্তবায়নে সময় চান ব্যাংক মালিকরা। গতকাল বুধবার বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকস (বিএবি), অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকারস, বাংলাদেশ (এবিবি) এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের মধ্যকার এক বৈঠকের পর এ তথ্য জানানো হয়।

তাঁরা বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া বেতনবিধি এখনই মানা ব্যাংকগুলোর পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। আগামী মার্চ মাস থেকে এ সিদ্ধান্ত মানাও ব্যাংকের জন্য কঠিন হয়ে পড়বে।

বিজ্ঞাপন

তাই এ বিষয়ে আরো বিশদ আলোচনা করে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে সময় চেয়েছে বিএবি।

গতকাল বুধবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরের সঙ্গে আলোচনা শেষে বের হয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান বিএবি সভাপতি ও এক্সিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদার।

নজরুল ইসলাম মজুমদার বলেন, ‘মার্চের মধ্যে এন্ট্রি লেভেল ব্যাংক কর্মকর্তাদের গাইডলাইন মেনে বেতন-ভাতা দেওয়া কঠিন হবে, আমরা গভর্নরকে সময় বাড়ানোর এবং পুরো বিষয়টি আরেকবার বিবেচনা করার অনুরোধ করেছি। আমাদেরকে আশ্বস্ত করা হয়েছে, কেন্দ্রীয় ব্যাংক বিষয়টি খতিয়ে দেখবে। ’

এর আগে গত ২০ জানুয়ারি শিক্ষানবিশকাল শেষ হওয়ার পর বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সর্বনিম্ন বেতন ৩৯ হাজার টাকা বেঁধে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আগামী মার্চ থেকে এ নির্দেশনা কার্যকর করতে হবে বলে জানানো হয়েছে নির্দেশনায়।

এ নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে না পারলে অথবা অদক্ষতার অজুহাতে কোনো ব্যাংকারকে চাকরিচ্যুত করা যাবে না। শিক্ষানবিশকালে ট্রেইনি অ্যাসিস্ট্যান্ট অফিসারদের (জেনারেল ও ক্যাশ) সর্বনিম্ন বেতন হবে ২৮ হাজার টাকা।



সাতদিনের সেরা