kalerkantho

মঙ্গলবার ।  ১৭ মে ২০২২ । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩  

নন-বন্ড প্রতিষ্ঠান

ব্যাক টু ব্যাক এলসির স্থায়ী সমাধান চায় বিজিএমইএ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্থানীয়ভাবে কাঁচামাল সংগ্রহের জন্য তৈরি পোশাক খাতের নন-বন্ড প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যাক টু ব্যাক এলসি খোলার স্থায়ী অনুমোদন দেওয়ার আহবান জানিয়েছে এ খাতের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ। তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি মো. ফারুক হাসান গত বৃহস্পতিবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) এই চিঠি দেন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

পোশাক খাতের উদ্যোক্তারা জানান, দেশের ঠিকা কারখানাগুলোতে প্রায় পাঁচ লাখ শ্রমিক কাজ করেন।

বিজ্ঞাপন

এ ছাড়া এসব কারখানা থেকে ৫০০ থেকে ৬০০ কোটি ডলারের রপ্তানি আয় আছে। সম্প্রতি এসব কারখানা থেকে ব্যাক টু ব্যাক এলসির মাধ্যমে পণ্য নেওয়া সুবিধা বন্ধ করে দেয় এনবিআর। এর ফলে তৈরি জটিলতা থেকে সরে এসে দ্রুত বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সুপারিশ বাস্তবায়নের এই চিঠি দেন।    

সূত্র জানায়, আমদানিনীতি অনুসারে রপ্তানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠান পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে বন্ডেড ওয়্যারহাউস আছে এমন প্রতিষ্ঠান ব্যাক টু ব্যাক ঋণপত্রের মাধ্যমে কাঁচামাল আমদানি করতে পারে। কিন্তু যেসব নন-বন্ড প্রতিষ্ঠান স্থানীয় বাজার থেকে ব্যাক টু ব্যাকের বিপরীতে কাঁচামাল সংগ্রহ করবে, তাদের বিষয়ে কোনো সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা ছিল না।

এই পরিপ্রেক্ষিতে এনবিআর নন-বন্ড প্রতিষ্ঠানে ব্যাক টু ব্যাক এলসি ইস্যু না করার নির্দেশনা জারি করেছিল। সেই প্রেক্ষাপটে রপ্তানিমুখী প্রতিষ্ঠান সেরা প্রবৃদ্ধির সময় বড় ধরনের ধাক্কা খায়। এনবিআর সম্প্রতি সেই সিদ্ধান্ত থেকে সাময়িকভাবে সরে আসে। ফলে এই সংকট সমাধানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় একটি কমিটি গঠন করে। সেই কমিটির সুপারিশ এখন বাস্তবায়নের অপেক্ষায়।

চিঠিতে বলা হয়, এই প্রেক্ষাপটে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটির সুপারিশ দ্রুত বাস্তবায়ন করার দাবি জানানো হয়।



সাতদিনের সেরা