kalerkantho

শুক্রবার । ৬ কার্তিক ১৪২৮। ২২ অক্টোবর ২০২১। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

এমিরেটসের হোম চেক-ইন সেবা জনপ্রিয় হচ্ছে দুবাইয়ে

বাণিজ্য ডেস্ক   

৫ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এমিরেটসের হোম চেক-ইন সেবা জনপ্রিয় হচ্ছে দুবাইয়ে

দুবাইয়ে দিনে দিনে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এমিরেটসের হোম চেক-ইন সেবা। শুধু জুলাই মাসেই দুবাইয়ে এমিরেটসের হোম চেক-ইন সেবা নিয়েছে আড়াই হাজারের বেশি ভ্রমণকারী। এই সেবায় দুবাই থেকে এমিরেটসে ভ্রমণকারী যাত্রীরা তাদের নিজেদের বাড়িতে সম্পূর্ণ চেক-ইন সুবিধা পেয়ে থাকে। ফলে বিমানবন্দরে তাদের চেক-ইনের ঝামেলা পোহাতে হয় না। জুলাই মাসে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই চার-পাঁচজনের গ্রুপ এই সেবাটি বুক করেছে। ঈদের ছুটিতে সেবাটির সর্বাধিক চাহিদা ছিল এক দিনে ১৩০টি পর্যন্ত। সেই সঙ্গে বিমানবন্দরে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে দেড় শতাধিক লাগেজ। এরই মধ্যে পুনরায় সেবা গ্রহণকারী যাত্রীদের প্রায় ৪০০ হোম চেক-ইন সেবা দেওয়া হয়েছে, যার মাধ্যমে এটির জনপ্রিয়তা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়।

চেক-ইন কালে এজেন্টরা বোর্ডিং পাস ইস্যু করেন, লাগেজ স্যানিটাইজ ও ওজন করে বিমানবন্দরে নিয়ে গিয়ে ফ্লাইটে লোড করে থাকেন। স্যানিটাইজ প্রক্রিয়ায় যাত্রীদের লাগেজে এমন একটি আয়রন দেওয়া হয়, যা ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত অক্ষত থাকে। সেবাটি পেতে হলে এমিরেটস ওয়েবসাইটে ন্যূনতম ২৪ ঘণ্টা আগে বুক করতে হয় এবং ফ্লাইট প্রস্থানের আট ঘণ্টা আগে সেবাটি প্রদান করা হয়ে থাকে। হোম চেক-ইনের আগে যাত্রীদের করোনা পরীক্ষা সুবিধাও দেওয়া হচ্ছে। দুবাই বিমানবন্দরে যাত্রীরা ফাস্ট-ট্র্যাক সেবা ‘মারহাবা’ও গ্রহণ করতে পারে। এই সেবার আওতায় তাদের ইমিগ্রেশনসহ অন্যান্য সহায়তা প্রদান করা হয়ে থাকে।

ফিরতি যাত্রায় ‘ল্যান্ড অ্যান্ড লিভ’ সেবা বুক করলে যাত্রীরা বিমানবন্দরে অপেক্ষা না করে বাড়ি চলে যেতে পারছে। এজেন্টরা ব্যাগেজ সংগ্রহ, স্যানিটাইজ ও কাস্টমস ক্লিয়ার করে যাত্রীদের বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছেন।



সাতদিনের সেরা