kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩০ জুলাই ২০২১। ১৯ জিলহজ ১৪৪২

বিল্ডের ওয়েবিনারে বক্তারা

অপ্রাতিষ্ঠানিক খাত অগ্রাধিকার দিয়ে আরেকটি প্রণোদনার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অপ্রাতিষ্ঠানিক খাত অগ্রাধিকার দিয়ে আরেকটি প্রণোদনার দাবি

বিল্ডের ওয়েবিনারে আলোচনায় অংশ নেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানসহ অন্যরা

কভিড-১৯-এর দ্বিতীয় ধাক্কা সামলাতে আরো একটি প্রণোদনা প্যাকেজ দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন দেশের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য বিশ্লেষকরা। নতুন এই প্যাকেজে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতকে অগ্রাধিকার দেওয়ার দাবি তুলে ধরেছেন তাঁরা। এদিকে করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আরো একটি প্রণোদনা প্যাকেজ করছে সরকার। এ নিয়ে এখন আলোচনা চলছে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

গতকাল বৃহস্পতিবার ‘কভিডের প্রেক্ষিতে প্রণোদনা, কর্মসংস্থান ও বিনিয়োগবিষয়ক’ এক ওয়েবিনারে এসব কথা বলেছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। এই ওয়েবিনারের আয়োজন করেছে বিজনেস ইনিশিয়েটিভ লিডিং ডেভেলপমেন্ট (বিল্ড)। আয়োজনে সহায়তা দিয়েছে পলিসি এক্সচেঞ্জ এবং আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও)।

 

ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, ‘করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আরো একটি প্রণোদনা প্যাকেজ করছে সরকার। এ নিয়ে এখন আলোচনা চলছে। নতুন প্রণোদনার সহায়তা এনজিওর মাধ্যমে দেওয়া হবে। এ ক্ষেত্রে ক্ষুদ্রঋণ রেগুলেটরি অথরিটি (এমআরএ), এসএমই ফাউন্ডেশন ও পিকেএসএফের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করা হবে। এতে প্রান্তিক পর্যায়েও সুবিধাভোগীর হাতে সহায়তা পৌঁছানো সহজ হবে।

আলোচনায় বাংলাদেশে আইএলওর কান্ট্রি ডিরেক্টর টুমো পুটিয়াইনেন বলেন, ‘সবার জন্য টিকা প্রদানকেই আপাতত এক নম্বর গুরুত্ব দিতে হবে বাংলাদেশকে। টিকার ব্যবস্থা হলে জীবন ও জীবিকার সব ধরনের ঝুঁকিই কমে আসবে। নতুন প্রণোদনা প্যাকেজে তরুণ এবং প্রকৃত কর্মহীনদের সহায়তা দিতে হবে।’ বিনিয়োগের ক্ষেত্রে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে আরো গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। মূল প্রবন্ধে পলিসি এক্সচেঞ্জ বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মাসরুর রিয়াজ বলেন, ‘দ্রুত সব মানুষকে টিকা সুবিধার আওতায় আনা, স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়ন বাজেট, বরাদ্দ যথাযথ বাস্তবায়ন, এ খাতে নতুন নতুন বিনিয়োগের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে।’

এ খাতে জিডিপির অন্তত ২ শতাংশ বরাদ্দ দেওয়ারও সুপারিশ করেন তিনি। করোনায় বিপদে পড়া উদ্যোক্তাদের সংকট কাটিয়ে উঠতে এসএমই খাতের জন্য ব্যাংকিং সুবিধা সহজ করার কথা বলেন। ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের একটি তথ্যভাণ্ডার করা, রেয়াতি সুদে ঋণের ব্যবস্থা করা, করছাড়সহ বিভিন্ন সুবিধা দিয়ে টিকিয়ে রাখার পরামর্শ দেন তিনি।

মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) সভাপতি নিহাদ কবির অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন। অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন সিপিডির সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান, এফবিসিসিআই সভাপতি জসিম উদ্দিন, ঢাকা চেম্বার সভাপতি রিজওয়ান রহমান প্রমুখ।