kalerkantho

মঙ্গলবার । ৮ আষাঢ় ১৪২৮। ২২ জুন ২০২১। ১০ জিলকদ ১৪৪২

ভ্যাট গোয়েন্দার অভিযান

৪ কোটি ৬০ লাখ টাকার ভ্যাট ফাঁকি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



লুবনান ট্রেড কনসোর্টিয়াম লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ভ্যাট গোয়েন্দাদের তদন্তে চার কোটি ৬০ লাখ টাকার ভ্যাট ফাঁকির উদঘাটন করেছে। ভ্যাট গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর থেকে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, লুবনান ট্রেড কনসোর্টিয়াম লিমিটেডের ঠিকানা হোমস্টিড গুলশান লিংক টাওয়ার, টিএ-৯৯ (১২তলা), গুলশান-বাড্ডা লিংক রোড, ঢাকা-১২১২। প্রতিষ্ঠানটির মূসক নিবন্ধন নং : ০০০৮৪১৭৯২-০১০১। প্রতিষ্ঠানটির তিনটি ব্র্যান্ড হলো : রিচম্যান অ্যাপারেলস, ইনফিনিটি মেগা মল ও লুবনান এথনিক উইয়ার। রাজধানীর বড় বড় শপিং মলসহ সারা দেশে ১০৮টি বিপণিকেন্দ্র রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির।

সূত্র আরো জানায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি একজন গ্রাহকের সুনির্দিষ্ট ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগ থাকায় ভ্যাট গোয়েন্দার সহকারী পরিচালক মো. মাহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে ভ্যাট গোয়েন্দাদের একটি দল প্রতিষ্ঠানটির কারখানা এবং অফিসে অভিযান চালায়। অভিযানে তথ্য-প্রমাণ খতিয়ে দেখে গতকাল (মঙ্গলবার) মামলা দায়ের করে।

অভিযানকালে প্রতিষ্ঠানের উপস্থিত প্রতিনিধির সহযোগিতায় বিভিন্ন কক্ষ তল্লাশি করে ২০১৬ সালের জুলাই থেকে ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত সময়ের প্রতিষ্ঠানটির মোট ১০৮টি শাখার জমাকৃত মূসকের সারসংক্ষেপের হিসাব (রিটার্ন অনুযায়ী), বাড়ি ভাড়ার চুক্তিপত্র, সিএ ফার্মের অডিট রিপোর্ট, করপোরেট চালানের কপি ও আমদানি এলসিগুলোর তথ্যসহ আনুষঙ্গিক বাণিজ্যিক দলিলাদি জব্দ করে।

সরেজমিনে সরকারের অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানের ভ্যাটসংক্রান্ত দলিলপত্র সংগ্রহ করে। দীর্ঘ তদন্ত শেষে ভ্যাট গোয়েন্দারা প্রতিষ্ঠানটির মূসক ফাঁকির প্রমাণ পেয়েছে।

ভ্যাট গোয়েন্দার তথ্য অনুসারে তদন্ত মেয়াদে বিক্রয়মূল্যের বিপরীতে প্রতিষ্ঠানটি ৩৯ কোটি ৮২ লাখ ৫৮ হাজার ৫৬৭ টাকার ভ্যাট পরিশোধ করেছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির ভ্যাটের পরিমাণ ছিল ৪১ কোটি ৫৮ লাখ ১৫ হাজার ৯৯৫ টাকা। এ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির ভ্যাট ফাঁকি এক কোটি ৭৫ লাখ ৫৭ হাজার ৪২৮ টাকা। এ ক্ষেত্রে ফাঁকিকৃত ভ্যাটের ওপর ভ্যাট আইন অনুসারে ৯৫ লাখ ২০ হাজার ৯২৯ টাকা সুদ ধার্য হয়। অন্যদিকে প্রতিষ্ঠানটির স্থান ও স্থাপনার ভাড়ার বিপরীতে চার কোটি ৪০ লাখ ৫১ হাজার ৩৬৮ টাকা পরিশোধ করেছে। এ ক্ষেত্রে ভ্যাট পাওনা ছিল চার কোটি ৪১ লাখ ৬৫ হাজার ৮০ টাকা। এ ক্ষেত্রে ভ্যাট ফাঁকি এক লাখ ১৩ হাজার ৭১২ টাকা। এ ক্ষেত্রে সুদ হয় ৭৫ হাজার ১৮ টাকা। প্রতিষ্ঠানটির উৎস ভ্যাট পরিশোধ করে তিন কোটি ২১ লাখ ৩৭ হাজার ৯৮৫ টাকা। প্রকৃত উৎস কর হয় চার কোটি ৯৪ লাখ ১৪ হাজার ৭০০ টাকা। এ ক্ষেত্রে রাজস্ব ফাঁকি এক কোটি ৭২ লাখ ৭৬ হাজার ৭১৫ টাকা। এ খাতে সুদ হয় ১৪ লাখ ৬৫ হাজার ৬৪০ টাকা। মোট ভ্যাট ফাঁকি চার কোটি ৬০ লাখ ৯ হাজার ৪৪২ টাকা।