kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

ভারতে করোনায় ক্ষতি দেড় লাখ কোটি রুপি

বাণিজ্য ডেস্ক   

২৬ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভারতে করোনায় ক্ষতি দেড় লাখ কোটি রুপি

ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যে কঠোর কারফিউ এবং লকডাউনের ফলে দেশটি প্রায় এক লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকা ক্ষতির মুখে পড়েছে। মহারাষ্ট্র, মধ্য প্রদেশ এবং রাজস্থানে লকডাউনের জন্য এই লোকসান হয়েছে, যা প্রায় ৮০ শতাংশ। স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে এসব কথা বলেছে।

অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় মহারাষ্ট্রে কঠোর লকডাউনের জেরে লোকসান হচ্ছে প্রায় ৫৫ শতাংশ। এসবিআই প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মহারাষ্ট্র ভারতের অর্থনৈতিকভাবে বৃহত্তম এবং সবচেয়ে শিল্পোন্নত রাজ্য হওয়ায় এই লকডাউন অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। বর্তমানে আমরা মহারাষ্ট্রের প্রায় ৮২ হাজার কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি অনুমান করছি। বিধি-নিষেধ আরো জোরদার করা হলে ক্ষয়ক্ষতি আরো বৃদ্ধি পাবে।

এসবিআই ২০২১-২২ অর্থবর্ষের জন্য মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) অনুমানও কমিয়েছে। করোনার প্রভাব পড়েছে শিল্প ও রপ্তানি খাতে। উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে ছোট-বড় অনেক কারখানার। মহামারির প্রভাব যদি দীর্ঘায়িত হয়, তাহলে দেশের ছোট-বড় শিল্প মালিকরা আরো বড় বিপাকে পড়তে পারেন।

এসবিআইয়ের প্রতিবেদন অনুসারে দেশের শিল্প ও সেবা খাতে যে আঘাত এসেছে, তা পরবর্তী সময়ে কর্মসংস্থানের ওপর আরো প্রভাব ফেলবে। চলমান লকডাউনে তৈরি পোশাক ও অন্য কিছু শিল্প-কারখানা চালু রাখার সুযোগ থাকলেও নির্মাণ, পরিবহন, পোল্ট্রিসহ অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে নিয়োজিত অসংখ্য মানুষের জীবিকা পড়েছে সংকটে। পশ্চিমাঞ্চল রেলপথের দেওয়া তথ্যে (১ এপ্রিলের জন্য) বলা হয়েছে যে মহারাষ্ট্র থেকে প্রায় ৪.৩২ লাখ মানুষ উত্তর প্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, আসাম ও ওড়িশা রাজ্যে ফিরে এসেছে। ৪.৩২ লাখ লোকের মধ্যে প্রায় ৩.২৩ লাখ ইউপি এবং বিহারে পাড়ি জমিয়েছে।

এটি যোগ করেছে যে এসবিআই ব্যাবসায়িক ক্রিয়াকলাপ সূচকে এপ্রিল মাসে ক্রিয়াকলাপ কমেছে বিপুলভাবে। এটি পাঁচ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। আংশিক এবং নিয়ন্ত্রিত লকডাউন যদি মে মাসের শেষ পর্যন্ত চলে, তাহলে সামগ্রিক ক্ষতির পরিমাণ দেশের গড় জাতীয় উৎপাদনের ০.৩৪ পার্সেন্টেজ পয়েন্ট বা ৭.৮ লাখ কোটি টাকায় পৌঁছে যেতে পারে।



সাতদিনের সেরা