kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

স্মল বিজ

বিডার অনুমোদন ছাড়াই রয়ালটি ফি বিদেশে পাঠানো যাবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রয়ালটি, টেকনিক্যাল নলেজ ও টেকনিক্যাল নো-হাউ ফি, টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ফি এবং ফ্রাঞ্চাইজি ফি বাবদ ৬ শতাংশ অর্থ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) অনুমোদন ছাড়াই বিদেশে পাঠানো যাবে। এত দিন এসব ফি বিদেশে পাঠানোর ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা ছিল না। সম্প্রতি বিডা থেকে এ বিষয়ে নীতিমালা জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, বিডার কেস টু কেস অনুমোদন ছাড়াই এখন ৬ শতাংশ অর্থ এসব খাতে ব্যয়ের জন্য বিদেশে পাঠানো যাবে। গতকাল রবিবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সব অথরাইজড ডিলার ব্যাংকগুলোকে এসংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দিয়ে সার্কুলার জারি করেছে। সার্কুলারে বলা হয়েছে, এখন থেকে অনুমোদিত ডিলার ব্যাংকগুলোকে রয়ালটি, টেকনিক্যাল নলেজ ও টেকনিক্যাল নো-হাউ ফি, টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ফি এবং ফ্রাঞ্চাইজি ফি পাঠানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) জারি করা গাইডলাইনের বিধিবিধান অনুসরণ করতে হবে। বিডার গাইডলাইনের সঙ্গে সংযুক্ত তফসিল-১ অনুযায়ী, রয়ালটি, টেকনিক্যাল নলেজ/টেকনিক্যাল নো-হাউ ফি, টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ফি বাবদ অর্থ নতুন প্রকল্পের ক্ষেত্রে আমদানি করা যন্ত্রপাতির সিঅ্যান্ডএফ মূল্যের ৬ শতাংশ বিদেশে প্রেরণযোগ্য হবে। বাণিজ্যিক কার্যক্রমে নিয়োজিত প্রকল্পের ক্ষেত্রে আয়কর বিবরণীতে ঘোষিত বিগত বছরের বিক্রয়ের (ভ্যাট ছাড়া) ৬ শতাংশ অর্থ এসব খাতে ব্যয় নির্বাহে বিদেশে প্রেরণ করা যাবে। বিডার গাইডলাইন অনুযায়ী ফি পাঠানোর ক্ষেত্রে রেমিট্যান্স প্রেরণকারীকে একটি মাত্র অনুমোদিত ডিলার ব্যাংক নির্ধারণ করতে হবে। অর্থ পাঠানোর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য উেস কর, ভ্যাট ও অন্যান্য সরকারি পাওনা আদায় ও পরিশোধ করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক কর্মকর্তা বলেন, গাইডলাইনের আওতায় বিডার কেস টু কেস অনুমোদন ছাড়াই রয়ালটি, টেকনিক্যাল নলেজ, প্রভৃতি ফি বাবদ আবশ্যকীয় ব্যয় বিদেশি সরবরাহকারীকে পরিশোধ করা সহজ হবে।