kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

৮২ হাজার গ্রামে চলছে গ্রামীণ ব্যাংকের কার্যক্রম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৮২ হাজার গ্রামে চলছে গ্রামীণ ব্যাংকের কার্যক্রম

দেশের প্রায় ৮২ হাজার গ্রামে গ্রামীণ ব্যাংকের কার্যক্রম চলছে বলে জানিয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার একমাত্র নোবেল বিজয়ী প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ ব্যাংক। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির সদস্যসংখ্যা প্রায় ৯৪ লাখ। গতকাল মঙ্গলবার গ্রামীণ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস এবং স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয় প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন গ্রামীণ ব্যাংক পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এ কে এম সাইফুল মজিদ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, সমাজের সবচেয়ে অবহেলিত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবন-মান উন্নয়নে গ্রামীণ ব্যাংক ১৯৭৬ সালে গ্রামাঞ্চলে জামানতবিহীন ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম শুরু করে। পরবর্তী সময়ে ১৯৮৩ সালের ২ অক্টোবর ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে গ্রামীণ ব্যাংকের ক্ষুদ্রঋণসহ অন্যান্য কার্যক্রমের অবদান দেশে-বিদেশে প্রশংসিত। যার কারণে গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ২০০৬ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার অর্জন করে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, পায়রা ওড়ানো, বৃক্ষরোপণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন যথাক্রমে দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত এবং আবদুল মোনেমের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক এ এস এম মঈনউদ্দিন মোনেম। সভায় উদ্বোধনী বক্তব্য দেন গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল খায়ের মো. মনিরুল হক।