kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

অর্থনীতি চাপে পড়বে না : অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অর্থনীতি চাপে পড়বে না : অর্থমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক বাজারে কোনো বিপদের আশঙ্কা না থাকলে এবং দেশে করোনা নিয়ন্ত্রণে থাকলে আর্থিক খাতে কোনো ঝুঁকি থাকবে না বলে আশা করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গতকাল বুধবার সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ভার্চুয়াল সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ আশা প্রকাশ করেন। এ সময় তিনি ভ্যাকসিন পাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই বলেও জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বিশ্ব অর্থনৈতিক অঙ্গনে একে অন্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত। তাই আমাদের ক্রেতারা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলে আমাদেরও কষ্ট হবে। আমাদের আয়ের দুইটা সোর্স, একটা অভ্যন্তরীণ বাজার, আরেকটা আন্তর্জাতিক বাজার। আন্তর্জাতিক মহল যদি বিপদে না পড়ে, তাহলে আমরাও বিপদে পড়ব না। আমরা বিপদটা এক্সচেঞ্জ করতে পারব।’

মন্ত্রী বলেন, প্রত্যেক দেশই ভ্যাকসিন নিয়ে নিয়েছে। ভ্যাকসিন নেওয়া শেষ হয়ে গেলে করোনার প্রভাব কমে আসবে। এটাই এখন সারা বিশ্ব প্রত্যাশা করছে। আমরাও এই প্রত্যাশা নিয়েই আছি।

করোনার ভ্যাসকিন সংকট নিয়ে তিনি বলেন, ‘ভ্যাকসিন না পাওয়ার কোনো কারণ নেই। এ ধরনের কোনো মেসেজ আমার কাছে নেই। আমরা ভ্যাকসিনের জন্য এরই মধ্যে টাকা পরিশোধ করেছি। ভ্যাকসিন আমরা না পাওয়ার কারণ নেই। আজও (গতকাল) স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে।’

করোনা সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। গত বছরের মতো এবারও অফিস-আদালত বন্ধের কোনো পরিকল্পনা আছে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য অন্যতম একটি বিষয় হলো ভ্যাকসিন। এর কাজ চলমান রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব কিছু নির্দেশনা জানিয়েছেন। সেই নির্দেশনাগুলো পরিপালন করা হবে। সেগুলো পরিপালন করলে করোনা সংক্রমণ কমে আসবে।

বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক প্রজেকশন করার ক্ষেত্রে তারা যেসব ধারণা নিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করে, সেগুলো অনেক সময় স্থানীয় পর্যায়ে আমাদের সঙ্গে মিল থাকে না, সে জন্য অসামঞ্জস্য থাকে। তাদের নিয়ম হচ্ছে তারা শুধু দেখবে আমাদের মেথলজি সঠিক কি না। আমরা যে ম্যাথডে জিডিপি নির্ধারণ করি, সেই ম্যাথডটা ঠিক আছে কি না। যেসব প্যারামিটার রয়েছে, সেগুলো যথাযথভাবে সলভ করি কি না, সেগুলো দেখলেই তারা সেটিসফাইড।’