kalerkantho

শনিবার । ২৭ চৈত্র ১৪২৭। ১০ এপ্রিল ২০২১। ২৬ শাবান ১৪৪২

বাণিজ্যিক অর্থপাচার রোধ

নীতিমালা বাস্তবায়নের সময় ফের বাড়ল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৈদেশিক বাণিজ্যের আড়ালে অর্থপাচার প্রতিরোধে প্রতিটি ব্যাংকের করণীয় নিয়ে নিজস্ব নীতিমালা তৈরি ও তা বাস্তবায়নের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। মহামারি করোনার কারণে দ্বিতীয় দফায় এই সময়সীমা আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়িয়েছে দেশের কেন্দ্রীয় আর্থিক গোয়েন্দা সংস্থা বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। গতকাল সোমবার বিএফআইইউ থেকে এসংক্রান্ত এক সার্কুলার জারি করা হয়েছে।

জানা যায়, বৈদেশিক বাণিজ্যের আড়ালে অর্থপাচার বা মানি লন্ডারিং প্রতিরোধে সমন্বিত উদ্যোগের আওতায় ২০১৯ সালের ১০ ডিসেম্বর একটি নীতিমালা জারি করে বিএফআইইউ। ওই নীতিমালার আলোকে প্রতিটি ব্যাংক বাণিজ্যভিত্তিক মানি লন্ডারিং ঝুঁকি বিবেচনায় নিয়ে নিজস্ব নীতিমালা প্রস্তুত করে ২০২০ সালের ১০ মার্চের মধ্যে বিএফআইইউতে দাখিল করার নির্দেশ দেওয়া হয়। ২০২০ সালের ১ জুন থেকে ওই নীতিমালা বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা হবে বলেও জানানো হয়। তবে করোনা ও কতিপয় ব্যাংকের আবেদন বিবেচনায় ওই নির্দেশনা বাস্তবায়নের সময়সীমা প্রথম দফায় ১ নভেম্বর পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছিল। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এই সময়সীমা দ্বিতীয় দফায় এখন আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএফআইইউ।

এ বিষয়ে গতকাল সোমবার জারি করা সার্কুলারে বলা হয়, এ ইউনিট কর্তৃক ২০১৯ সালের ১০ ডিসেম্বর এক সার্কুলারের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে মানি লন্ডারিং, সন্ত্রাসী কার্যক্রম ও ব্যাপক ধ্বংসাত্মক অস্ত্র বিস্তারে অর্থায়ন ঝুঁকি মোকাবেলায় কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্ত তফসিলি ব্যাংকগুলোর নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ক্ষেত্র, ব্যাপ্তি, গ্রাহকসংখ্যা, প্রকৃতি ইত্যাদি বিবেচনায় নিজস্ব নীতিমালা প্রণয়ন করে ২০২০ সালের ১ জুনের মধ্যে তা বাস্তবায়নের নির্দেশনা প্রদান করা হয়, যা পরবর্তী সময়ে কভিড-১৯ মহামারি ও কতিপয় ব্যাংকের আবেদন বিবেচনায় ২০২০ সালের ১ নভেম্বর পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। এখন কয়েকটি ব্যাংকের আবেদন ও সার্বিক কভিড-১৯ মহামারি পরিস্থিতি বিবেচনায় এটি বাস্তবায়নের সময়সীমা আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বর্ধিত করা হলো।

মন্তব্য