kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

খেলাপি ঋণ কমলেও মূলধন সংরক্ষণে অবনতি

১০ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ২৮ হাজার ৯৫২ কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



খেলাপি ঋণ কমলেও মূলধন সংরক্ষণে অবনতি

করোনার বছরে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ কমলেও মূলধন সংরক্ষণ পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হয়নি। ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে সরকারি-বেসরকারি ১০টি ব্যাংক মূলধন ঘাটতিতে রয়েছে। এসব ব্যাংকের মূলধন ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৮ হাজার ৯৫২ কোটি টাকা। গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১১টি ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ছিল ১৯ হাজার ২৯৬ কোটি টাকা। আর ২০১৯ সালে ডিসেম্বরে ১২ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ছিল ২৩ হাজার ৬১২ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন পর্যালোচনায় এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

নিয়ম অনুযায়ী ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের জোগান দেওয়া অর্থ ও মুনাফার একটি অংশ মূলধন হিসেবে সংরক্ষণ করা হয়। কোনো ব্যাংক মূলধনে ঘাটতি রেখে তার শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দিতে পারে না। অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, ঋণের গুণগত মান বাড়ানো ছাড়া মূলধন পরিস্থিতির উন্নতি হবে না। এ জন্য ঋণের গুণগত মান বাড়াতে প্রথমত খেলাপি ঋণ আদায়ে জোর দিতে হবে। একই সঙ্গে নতুন ঋণ বিতরণের আগে ভালোভাবে যাচাই করে দিতে হবে। ঋণটা সঠিক খাতে ব্যবহার হচ্ছে কি না, তা দেখতে হবে। এ ছাড়া সব ধরনের অপচয় রোধ করে আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে মূলধন পরিস্থিতির উন্নতি করতে হবে।

আন্তর্জাতিক ব্যাসেল-৩ নীতিমালা অনুযায়ী ঝুঁকি বিবেচনায় ব্যাংকগুলোকে নিয়মিত মূলধন সংরক্ষণ করতে হয়। বর্তমান নিয়মে একটি ব্যাংকের মোট ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদের ১০ শতাংশ অথবা ৪০০ কোটি টাকার মধ্যে যেটি বেশি, সেটি ন্যূনতম পরিমাণ হিসেবে মূলধন রাখতে হয়। কোনো ব্যাংক এই পরিমাণ অর্থ সংরক্ষণে ব্যর্থ হলে মূলধন ঘাটতি হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, গত বছরের ডিসেম্বর প্রান্তিকে মূলধন সংরক্ষণের এই শর্ত পূরণ করতে পারেনি ১০ ব্যাংক। এর মধ্যে রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত পাঁচটি, বেসরকারি তিনটি ও বিশেষায়িত দুটি ব্যাংক। তবে এই সময়ে বেশির ভাগ ব্যাংকের মূলধন উদ্বৃত্ত থাকায় সার্বিক ব্যাংকিং খাতে মূলধন উদ্বৃত্ত রয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ঝুঁকিভিত্তিক সম্পদের ১০ শতাংশ বিবেচনায় ডিসেম্বর শেষে ব্যাংকগুলোর মূলধন রাখার কথা এক লাখ ১৫ হাজার ৯০৪ কোটি টাকা। তবে আপৎকালীন সুরক্ষা সঞ্চয়সহ ব্যাংক খাতে মূলধন রয়েছে এক লাখ ৩১ হাজার ৮৩৪ কোটি টাকা। এতে করে সার্বিক উদ্বৃত্ত রয়েছে ১৫ হাজার ৯৩০ কোটি টাকা বা ১১.৬৪ শতাংশ, যা গত সেপ্টেম্বরে ছিল ১১.৯৪ শতাংশ।

এদিকে ২০১৬ সাল থেকে ক্যাপিটাল কনজারভেশন বাফার বা আপৎকালীন সুরক্ষা সঞ্চয় হিসেবে ব্যাংকগুলোকে অতিরিক্ত মূলধন রাখতে হচ্ছে। ব্যাসেল-৩ বাস্তবায়নের আওতায় ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে ০.৬২৫, ২০১৭ সালে ১.২৫, ২০১৮ সালে ১.৮৭৫ ও ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে ২.৫ শতাংশ হারে এই বাড়তি পুঁজি সংরক্ষণ করার নির্দেশনা ছিল। এভাবে ন্যূনতম মূলধন এবং সংস্থান বজায় রেখে ২০১৬ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ব্যাংকের মূলধন পর্যাপ্ততার হারের লক্ষ্যমাত্রা যথাক্রমে ১০.৬২৫, ১১.২৫, ১১.৮৭৫ ও ১২.৫০ শতাংশে উন্নীত করার কথা বলা ছিল।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ৫৯টি ব্যাংকের মধ্যে ৪৫টির মূলধন সাড়ে ১২ শতাংশের ওপরে আছে। ঘাটতিতে থাকা ১০টি ব্যাংকসহ ১৪টি ব্যাংকের মূলধন সংরক্ষণের পরিমাণ এর কম।

মন্তব্য