kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

দুঃসময়ের বন্ধু সম্মাননা অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী

অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান সংস্থার ৮০% ব্যবসা পুনরুদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান সংস্থার ৮০% ব্যবসা পুনরুদ্ধার

‘ফ্রেন্ড ইন নিড’ সম্মাননাপ্রাপ্ত এয়ারলাইনসের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলীসহ অন্যরা

অভ্যন্তরীণ রুটে দেশের এয়ারলাইনসগুলোর ব্যবসা ৮০ শতাংশের বেশি পুনরুদ্ধার হয়েছে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। তিনি বলেছেন, কভিড-১৯ টিকা দেওয়ার ফলে জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত হওয়ায় অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রী ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। একই সঙ্গে অভ্যন্তরীণ পর্যটন খাতও আবার উজ্জীবিত হয়ে উঠছে।

গতকাল বুধবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে কভিড-১৯ মহামারিকালে আকাশ পথে যাত্রী পরিবহনে সেবা প্রদানকারী এয়ারলাইনসগুলোকে সম্মাননা প্রদান উপলক্ষে মনিটর পত্রিকা আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘কভিড-১৯ মহামারির কারণে বিশ্বজুড়ে দেশে দেশে লকডাউনের ফলে যখন সব কিছু থমকে গিয়েছিল তখনো দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে আমাদের এভিয়েশন কর্মীরা জীবনের মায়াকে তুচ্ছ করে দায়িত্ব পালন করেছেন। অপারেশন সীমিত করা হলেও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ও বিমানবন্দর এক দিনের জন্যও বন্ধ হয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী সিদ্ধান্তের কারণেই তখন সারা বিশ্ব থেকে আমরা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাইনি।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘চীনে প্রথম করোনা শনাক্ত হওয়ার পর এই রোগের ভয়াবহতায় মানুষ যখন এক অনিশ্চিত আতঙ্কে আতঙ্কিত তখন চীনের অবরুদ্ধ উহান শহর থেকে আটকে পড়া বাংলাদেশি নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে আনতে ফ্লাইট পরিচালনা করেছে বিমান। পুরো লকডাউনের সময় আমাদের অন্য দুটি দেশীয় এয়ারলাইনস দেশের মানুষের জন্য কাজ করেছে। বিমানবন্দর কর্মীদের আন্তরিকতা, সাহসিকতা ও দেশপ্রেম সবার জন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে।’

মনিটর সম্পাদক কাজী ওয়াহিদুল আলম সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান, সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত আবদুল্লাহ আলী আল হামুদি, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন, নভো এয়ারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মফিজুর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ভয়াবহ কভিড-১৯ মহামারির সবচেয়ে চ্যালেঞ্জপূর্ণ সময়ে বাংলাদেশ ও এর জনগণের প্রতি প্রদর্শিত দৃঢ় অঙ্গীকারের স্বীকৃতিস্বরূপ নির্বাচিত দেশি-বিদেশি কয়েকটি এয়ারলাইনস ‘ফ্রেন্ড ইন নিড’ বা দুঃসময়ের বন্ধু সম্মাননা লাভ করেছে।

বিশেষ সম্মাননা পেল যারা : বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস, নভো এয়ার, কাতার এয়ারওয়েজ, এমিরেটস এয়ারলাইনস এবং এয়ার অ্যারাবিয়া। এ ছাড়া মহামারির প্রাথমিক পর্যায়ে দেশের বেসামরিক বিমান চলাচল খাতকে দ্রুততার সঙ্গে নিউ-নরমাল অবস্থায় নিয়ে আসাতে ত্বরিত পদক্ষেপের জন্য বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষকে (ক্যাব) বিশেষ ধন্যবাদ স্মারক প্রদান করা হয়।

কাজী ওয়াহিদুল আলম বলেন, ‘বাংলাদেশের আকাশ উন্মুক্ত করে দেওয়ার পর কিছু এয়ারলাইনস জনগণের প্রতি তাদের দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করে স্বল্পতম সময়ের মধ্যেই বাংলাদেশে নিয়মিত যাত্রীবাহী ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করে।’

মন্তব্য