kalerkantho

রবিবার। ২২ ফাল্গুন ১৪২৭। ৭ মার্চ ২০২১। ২২ রজব ১৪৪২

আমদানি করা যাবে অপরিশোধিত সোনা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আমদানি করা যাবে অপরিশোধিত সোনা

‘স্বর্ণ নীতিমালা ২০১৮’-এর সংশোধনী প্রস্তাবে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। ফলে অপরিশোধিত আকরিক সোনা বা আংশিক পরিশোধিত সোনা আমদানি করা যাবে। গতকাল বুধবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত কমিটির ভার্চুয়াল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকের পর অনুষ্ঠিত হয় সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক। এতেও সভাপতিত্ব করেন অর্থমন্ত্রী। বৈঠকে এক হাজার ১৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে সাতটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, দেশে কেউ না খেয়ে নেই।

অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক সূত্রে জানা যায়, সংশোধনী নীতিমালার আওতায় দেশে বৈধ উপায়ে অপরিশোধিত বা আকরিক সোনা এবং আংশিক পরিশোধিত সোনা আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বিদ্যমান নীতিমালায় সোনার বার ও স্বর্ণালংকার আমদানির বিধান থাকলেও অপরিশোধিত সোনা আকরিক বা আংশিক পরিশোধিত সোনা আমদানির বিষয়ে কিছু উল্লেখ নেই। সংশোধিত নীতিমালায় বিষয়টি সংযোজন করা হয়েছে।

বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে জানান, করোনা ভ্যাকসিনের জন্য নির্ধারিত সময় এলেই তিনি ভ্যাকসিন নেবেন। তিনি বলেন, ‘আমি একা নিলেই তো হবে না। আমি এখনো সবার আগে টিকা নিতে চাই। যেদিন নেব সেদিন আমি সবার আগে থাকব, এটা আশ্বস্ত করতে পারি।’

তিনি বলেন, ‘এখন তারিখসহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে কাজ চলছে। সমাজের বিভিন্ন এলাকা ধরে আমরা টিকা বিতরণ করব।’

কয়েক দিন আগে একটি গবেষণা সংস্থা দেশে গরিব মানুষের সংখ্যা বেড়েছে বলে উল্লেখ করেছে। এই বিষয়ে মন্ত্রীর মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দেশে একজন মানুষও না খেয়ে নেই। আপনাদের ধারণা কী? আমাদের দেশে গরিবের হার বেড়ে গেছে?’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘অতি কাছাকাছি সময়ে আমাদের পরিসংখ্যান ব্যুরো এটার কাজ করেছে বলে আমার মনে হয় না। কভিডের আগে যেসব ফিগার ছিল, সেগুলো আমরা ব্যবহার করি। পরে তারা যখন আবার জরিপ চালাবে তখন আমরা আবার লেটেস্ট পজিশন জানতে পারব।’

এদিকে ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা বৈঠকে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের ‘শতভাগ পল্লী বিদ্যুতায়নের জন্য বিতরণ নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ (রাজশাহী, রংপুর, খুলনা ও বরিশাল বিভাগ) (১ম সংশোধিত)’ প্রকল্পের আওতায় ২৩ হাজার ৬৫০টি বৈদ্যুতিক খুঁটি (এসপিসি পোল) কেনার প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এগুলো সরবরাহ করবে বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি লিমিটেড। এতে ব্যয় হবে ৩২ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

অর্থমন্ত্রী জানান, বৈঠকে ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় পুলিশ সদস্যদের জন্য ৯টি আবাসিক টাওয়ার ভবন নির্মাণ’ প্রকল্পের আওতায় ডেমরা পুলিশ লাইনস এলাকায় ২০ তলা আবাসিক ভবন নির্মাণের পূর্ত কাজের ঠিকাদার নিয়োগের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। যৌথভাবে কাজটি পেয়েছে ‘দ্য সিভিল ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড’ ও ‘দ্য অরবিটাল বাংলাদেশ’। এতে ব্যয় হবে ৮০ কোটি ৩৫ লাখ টাকা।

অর্থমন্ত্রী জানান, বৈঠকে শহর এলাকায় ‘স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য উন্নত জীবনব্যবস্থা (১ম সংশোধিত)’ প্রকল্পের পরামর্শক সেবা ব্যয় বাড়ানোর একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হচ্ছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘আইএমসি ওয়ার্ল্ডওয়াইড’। এতে পরামর্শক ব্যয় বাড়ছে ১৩ কোটি চার লাখ টাকা।

মন্তব্য