kalerkantho

রবিবার। ২২ ফাল্গুন ১৪২৭। ৭ মার্চ ২০২১। ২২ রজব ১৪৪২

আমানতকারীদের আলটিমেটাম

১৫ দিনের মধ্যে টাকা ফেরত না দিলে রাজপথে অবস্থান

আদালতের নির্দেশনা ছাড়া কিছু করা যাচ্ছে না

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১৫ দিনের মধ্যে টাকা ফেরত না দিলে রাজপথে অবস্থান

আগামী ১৫ দিনের মধ্যে টাকা ফেরত দেওয়ার আলটিমেটাম দিয়েছেন পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যানশিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডের ব্যক্তি আমানতকারীরা। এই সময়ের মধ্যে টাকা ফেরত না পেলে রাজপথে অবস্থানের ঘোষণাও দিয়েছেন তাঁরা। গতকাল সোমবার রাজধানীর সিটি সেন্টারের সামনে ব্যক্তি আমানতকারী কাউন্সিলের ব্যানারে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে এই আলটিমেটাম দেওয়া হয়। মানববন্ধন শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের সঙ্গে দেখা করে স্মারকলিপি জমা দেন আমানতকারীরা।

মানববন্ধনের আহ্বায়ক ও প্রধান সমন্বয়কারী মো. আতিকুর রহমান আতিক বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের লাইসেন্সকৃত প্রতিষ্ঠান পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কম্পানি। কম্পানিটি বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়োগপ্রাপ্ত একজন পরিচালকের মাধ্যমে পরিচালিত হতো। কিছু ব্যক্তি মাসের পর মাস এই ফাইন্যান্স কম্পানি থেকে শত শত কোটি টাকা দেশ থেকে পাচার করলেন, অথচ বাংলাদেশ ব্যাংক এগুলোর খবর রাখেনি। যখনই পাচারকারীরা দেশ থেকে চলে গেছেন, তখনই এই টাকার সন্ধান করা হয়। এ থেকে প্রমাণিত হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের যোগসাজশে টাকা পাচার হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা আজ কোনো ভিক্ষা চাচ্ছি না, প্রণোদনা চাচ্ছি না, আমরা আমাদের টাকা ফেরত চাচ্ছি। বাংলাদেশ ব্যাংক আমাদের বারবার আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত টাকা ফেরত দেওয়া হয়নি।’

এ সময় ১৫ দিনের মধ্যে টাকা ফেরতের আলটিমেটাম দিয়ে তিনি বলেন, ‘এই সময়ের মধ্যে যদি টাকা না পাই, তাহলে রাজপথে অবস্থান করব। প্রতিটি ফাইন্যান্স কম্পানির সামনে আমরা ব্যানার টাঙিয়ে দেব। আমরা লিখে দেব—ফাইন্যান্স কম্পানিতে টাকা দিলে আপনি এক টাকাও ফেরত পাবেন না। একই সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের সামনে আমাদের টানা অবস্থান কর্মসূচি চলবে। অনেক ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছি, আর পারছি না, দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। আমাদের অনেকে অসুস্থ, কেউ কেউ মারা গেছেন, কেউ চিকিৎসা করাতে পারছেন না, মেয়ের বিয়ে দিতে পারছেন না, সংসার চালাতে পারছেন না; আমাদের টাকা ফেরত দিন, আমরা বাঁচতে চাই।’

এ কে এম আনসার উদ্দিন নামের এক আমানতকারী বলেন, ‘আমি সরকারি চাকরি করতাম, পাঁচ বছর হলো অবসর নিয়েছি। আমার অবসরের টাকা আমি পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কম্পানিতে বিনিয়োগ করেছি। ভেবেছি এখান থেকে কিছু লাভ পাব, মেয়ের বিয়ে দেব। এখন আর কোনো টাকা পাচ্ছি না, কোনো লাভ দেওয়া হয় না। তাই সংসার চালাতে পারি না।’

মানববন্ধন শেষে পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল গভর্নরের সঙ্গে দেখা করে স্মারকলিপি জমা দেয়। পরে প্রতিনিধিদলের সদস্যরা সাংবাদিকদের জানান, যত দ্রুত সম্ভব বাংলাদেশ ব্যাংক টাকা দিয়ে দিতে চায়। কিন্তু এখন আদালতের নির্দেশনা ছাড়া কিছু করা যাচ্ছে না। এ ছাড়া এই মুহূর্তে অবসায়কের নামে খোলা হিসাবে যে টাকা জমা হয়েছে, তা বিতরণের উপযোগী নয়। তবে পর্যাপ্ত টাকা জমা হলে আদালতের অনুমোদন নিয়ে আমানতকারীদের টাকা ফেরত দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন গভর্নর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা