kalerkantho

সোমবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩০ নভেম্বর ২০২০। ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

গ্রামীণফোনের রাজস্ব কমলেও গ্রাহক বেড়েছে

বাণিজ্য ডেস্ক   

২০ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গ্রামীণফোনের রাজস্ব কমলেও গ্রাহক বেড়েছে

চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) তিন হাজার ৫৫৬ কোটি টাকা রাজস্ব অর্জন করেছে, যা ২০১৯ সালের একই সময়ের তুলনায় ২.৮ শতাংশ কম। ২৫ শতাংশ মার্জিন নিয়ে এ সময়ে প্রতিষ্ঠানটির কর-পরবর্তী মুনাফা দাঁড়িয়েছে ৮৯০ কোটি টাকা। শেয়ারপ্রতি মূল্য (ইপিএস) ৬.৫৯ টাকা। ৯ মাস শেষে গ্রামীণফোনের মোট গ্রাহকসংখ্যা সাত কোটি ৭৬ লাখ যার মধ্যে ৫৪.১ শতাংশ বা চার কোটি ২০ লাখ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী।

গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান বলেন, ‘কভিড-১৯-এর প্রথম মাসগুলোর তুলনায় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ধীরে ধীরে শুরু হওয়ায় বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে গ্রামীণফোন ব্যাবসায়িকভাবে ফিরে আসতে শুরু করেছে। তবে এই প্রান্তিকে বিরূপ আবহাওয়া আমাদের ব্যাবসায়িক কর্মকাণ্ডে প্রভাব ফেলেছে। মানুষের কাছে ফোরজি সেবা পৌঁছে দিতে তৃতীয় প্রান্তিকে আমাদের ফোরজির নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বেড়েছে। আগের প্রান্তিকের তুলনায় তৃতীয় প্রান্তিকে ৪.১ শতাংশ বেশি গ্রাহক আমাদের নেটওয়ার্কের আওতায় এসেছেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘২০২০ সালের তৃতীয় প্রান্তিকে রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টি ও বন্যা নতুনভাবে আমাদের চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছে। বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে ৮.১ শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধির পর তৃতীয় প্রান্তিকে আমরা উল্লেখযোগ্যভাবে ফিরে আসতে সমর্থ হয়েছি। এ সময়ে ভয়েস ও ডাটাসহ মোট রাজস্ব আদায়ে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২.৮ শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে। আগের বছরের তুলনায় প্রথম ৯ মাসে ডিজিটাল রিচার্জে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি।’

তৃতীয় প্রান্তিকে গ্রামীণফোন নেটওয়ার্ক উন্নয়নে ৩২০ কোটি (লাইসেন্স ও লিজ বাদে) টাকা বিনিয়োগ করেছে। এ সময়ে ১০৭০টি নতুন ফোরজি সাইট স্থাপন করা হয়েছে। সেপ্টেম্বর শেষে মোট নেটওয়ার্ক সাইটের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬ হাজার ৪৮১। ২০২০ সালের প্রথম ৯ মাসে গ্রামীণফোন সরকারের কোষাগারে কর, ভ্যাট, ডিউটি, ফোরজি লাইসেন্স ও স্পেকটার্ম অ্যাসাইনমেন্ট বাবদ মোট রাজস্বের ৬৮ শতাংশ বা সাত হাজার ১২৭ কোটি টাকা জমা দিয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা