kalerkantho

সোমবার । ১০ কার্তিক ১৪২৭। ২৬ অক্টোবর ২০২০। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারে বক্তারা

এসএমই খাত পুনরুদ্ধারে সম্মিলিত উদ্যোগ দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশের অর্থনীতি ও কর্মসংস্থানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এসএমই খাত। করোনা মহামারিতে বড় সংকটে পড়েছে উদ্যোক্তারা। তাই দেশের এসএমই খাতের সংকট কাটাতে প্রয়োজন সম্মিলিত উদ্যোগ।

গতকাল বৃহস্পতিবার এসএমই ফাউন্ডেশন ও জার্মান সংস্থা এফইএস বাংলাদেশের যৌথ আয়োজনে এক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন। ‘করোনা মহামারি ও এসএমই : অভিঘাত প্রশমন নীতিমালা এবং ভবিষ্যৎ বিতর্ক—বাংলাদেশে প্রভাব এবং বিশ্বের প্রতিক্রিয়া থেকে শিক্ষা’ বিষয়ে এই আলোচনার আয়োজন করা হয়।

এসএমই ফাইন্ডেশনের চেয়ারপারসন ড. মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারপারসন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন এফইএস বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি মিস টিনা ব্লুম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব অরিজিৎ চৌধুরী, উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. এম আবু ইউসুফ, এসএমই ফাউন্ডেশনের পরিচালক রাশেদুল করীম মুন্না, এসএমই ফাউন্ডেশনের পরিচালক ও চিটাগং উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্টাস্ট্রিজের সভাপতি মনোয়ারা হাকিম আলী।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. আতিউর রহমান এবং জার্মানির ক্রাফট ইন্ডাস্ট্রি ইন্টারন্যাশনালের ভাইস চেয়ার মাইকেল রজলার। স্বাগত বক্তব্য দেন এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সফিকুল ইসলাম। সেমিনারের মূল আলোচকরা এসএমই খাতের জন্য সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের প্রশংসা করেন। তাঁরা প্রণোদনার পরিমাণ আরো বাড়ানোর পরামর্শ দেন। বাংলাদেশে মোট প্রণোদনার ২২ শতাংশ এসএমই খাতের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে। মালয়েশিয়ায় এই হার ২৪ শতাংশ, থাইল্যান্ডে ৩৩ এবং ভারতে মোট প্রণোদনার ৩৮ শতাংশই এসএমই খাতে।

কভিড মোকাবেলায় পাঁচটি সুপারিশ তুলে ধরা হয়। এসএমই নীতিমালা ২০১৯ বাস্তবায়ন; এসএমই উদ্যোক্তাদের সেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিশেষ নজর দেওয়া; ডিজিটাল আর্থিক সেবা শক্তিশালীকরণ; ডিজিটাল ড্যাশবোর্ড তৈরি করে সিএসএমই উদ্যোক্তাদের জন্য ঋণ বিতরণে নজরদারি এবং এসএমই উদ্যোক্তাদের পণ্য রপ্তানিতে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা