kalerkantho

রবিবার । ৯ কার্তিক ১৪২৭। ২৫ অক্টোবর ২০২০। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ইন্টারনেটভিত্তিক লেনদেন নিয়ে বিএসইসির গণশুনানি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইন্টারনেটভিত্তিক লেনদেনে সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে গণশুনানি শুরু করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। পুঁজিবাজারের স্টেকহোল্ডারদের নিয়ে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সঙ্গে অনলাইনে এটি অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল সোমবার প্রথম শুনানিতে ইন্টারনেটভিত্তিক লেনদেনে সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের মতামত শোনেন নিয়ন্ত্রক সংস্থার কর্মকর্তারা। ভবিষ্যতেও শেয়ারবাজারের অন্যান্য বিষয় নিয়েও মধ্যস্থতাকারীদের সমস্যা ও সুবিধা শোনা হবে বলে এ সময় জানানো হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএসইসির কমিশনার আব্দুল হালিম বলেন, দেশের নাগরিকরা কতটা সেবা পাচ্ছেন, সেখানে তাঁরা কতটুকু সন্তুষ্ট বা তাঁদের কোনো ক্ষোভ রয়েছে কি না, এসব বিষয় নীতিনির্ধারকদের গোচরে আনার জন্য এবং সুশাসনের অংশ হিসেবে পাবলিক হেয়ারিং করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় বিএসইসি পুঁজিবাজারে সুশাসনের জন্য হেয়ারিংয়ের যাত্রা শুরু করেছে। তিনি বলেন, বিএসইসি নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে বাজারকে নিয়ন্ত্রণের জন্য আইনের প্রয়োগ করে থাকে। এ ছাড়া বর্তমান কমিশন মনে করে, সুশাসনে স্টেকহোল্ডারদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তাঁদের ভালোর জন্যই বিএসইসি। পরে অংশগ্রহণকারীদের ইন্টারনেটভিত্তিক ট্রেডিংয়ের সমস্যা ও এর সমাধান নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) মো. রেজাউল করিম, ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ছানাউল হক এবং প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা মো. জিয়াউল করিম। তাঁরা দেশব্যাপী বিনিয়োগ সচেতনতার বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা