kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ কার্তিক ১৪২৭। ২২ অক্টোবর ২০২০। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

২ শতাংশ শেয়ার ধারণে ব্যর্থ

পদ হারালেন পুঁজিবাজারের ৯ কম্পানির ১৭ পরিচালক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পদ হারালেন পুঁজিবাজারের ৯ কম্পানির ১৭ পরিচালক

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কম্পানির প্রত্যেক পরিচালকের পরিশোধিত মূলধনের ২ শতাংশ শেয়ার ধারণ বাধ্যতামূলক। দফায় দফায় নির্দেশনা ও শাস্তিস্বরূপ ব্যবস্থা নেওয়ার পরও এই শর্ত মানেনি তালিকাভুক্ত ২২টি কম্পানি। নিয়ন্ত্রক সংস্থার নির্দেশনাকে পাশ কাটিয়ে বহাল তবিয়তে পরিচালনা পর্ষদে নেতৃত্ব দিয়েছেন পরিচালকরা।

বিনিয়োগকারীর স্বার্থে এবং কম্পানির পর্ষদে স্বচ্ছতা আনতে শর্ত মানতে ব্যর্থ হওয়া এই পরিচালকদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। ৯টি কম্পানির ১৭ জন পরিচালককে পরিচালনা পর্ষদ থেকে অপসারণ করা হয়েছে। আগামী ৩০ দিনের মধ্যে শূন্যপদে পরিচালক নিয়োগ দিতে হবে।

পরিচালক পদ শূন্য হওয়া ৯টি কম্পানি হলো বাংলাদেশ জেনারেল ইনস্যুরেন্স কম্পানি, ইস্টার্ন ইনস্যুরেন্স, ইমাম বাটন, ইনটেক, মেঘনা লাইফ ইনস্যুরেন্স, মার্কেন্টাইল ইনস্যুরেন্স, প্রভাতী ইনস্যুরেন্স, পূরবী জেনারেল ইনস্যুরেন্স ও ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ।

জানা যায়, পরিচালক পদ শূন্য হলে যাঁদের ২ শতাংশ শেয়ার রয়েছে তাঁদের আগ্রহের ভিত্তিতে শেয়ারহোল্ডারদের অনুমোদনক্রমে পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হবে। যদি একাধিক ব্যক্তি আগ্রহ প্রকাশ করেন তাহলে ভোটাভুটির মাধ্যমে পরিচালক নির্বাচিত হবেন।

সূত্র জানায়, গত ২ জুলাই তালিকাভুক্ত কম্পানির প্রত্যেক পরিচালককে ২ শতাংশ শেয়ার ধারণে বাধ্যবাধকতা আরোপ করে ৪৫ দিনের আলটিমেটাম দেওয়া হয়। ২২টি কম্পানির ৬১ জন পরিচালক ২ শতাংশ শেয়ার ধারণে ব্যর্থ হন। কমিশনের নির্দেশনার পর ২৫ জন পরিচালক ২ শতাংশ শেয়ার কিনেছেন। ১৮ জন পরিচালক অপসারণের আগেই কম্পানি পর্ষদ ছেড়েছেন। আর ১১টি কম্পানির ১৭ জন পরিচালক শেয়ার কেনেননি, কিন্তু পর্ষদে রয়ে গেছেন।

সর্বশেষ ২০১৯ সালের ২১ মে নিয়ন্ত্রক সংস্থার এক নির্দেশনায় তালিকাভুক্ত কম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ এবং স্বতন্ত্র পরিচালক ব্যতীত সব পরিচালককে ২ শতাংশ শেয়ার ধারণে বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়। শর্ত মানতে ব্যর্থ হওয়া কম্পানিগুলোর মূলধন উত্তোলনে রাইট শেয়ার ইস্যু, বোনাস শেয়ার ইস্যু ও যেকোনো উপায়ে পুঁজিবাজার থেকে মূলধন উত্তোলনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০০৯-১০ সালে পুঁজিবাজারে শেয়ার কারসাজিতে ভয়াবহ ধসের পর ২০১১ সালের ২২ নভেম্বর পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি তালিকাভুক্ত কম্পানির পরিচালকদের এককভাবে ও সম্মিলিতভাবে ন্যূনতম শেয়ার ধারণের শর্ত আরোপ করা হয়। কম্পানির পরিচালনায় জবাবদিহি ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়।

বিএসইসি সূত্র জানায়, ২ শতাংশ শেয়ার ধারণে আলটিমেটাম দেওয়ার পরও কিছু পরিচালক পাত্তা দেননি। অনেক পরিচালক শেয়ার কিনে শর্ত পরিপালন করেন। তবে ৪৫ দিন পার হলেও ১১টি কম্পানির ১৭ জন পরিচালক শর্ত পরিপালন করেননি। তাই শাস্তিস্বরূপ পরিচালক পদ থেকে তাঁদের অপসারণ করা হবে। নতুন করে ওই পরিচালক পদে নিয়োগ দেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা