kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

মুনাফা হলেও লভ্যাংশ না দেওয়ার ঘোষণা

এক্সপ্রেস ইনস্যুরেন্সকে তলব

সিদ্ধান্ত বদলের আভাস

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার এক মাস পার না হতেই শেয়ারহোল্ডারদের কোনো লভ্যাংশ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এক্সপ্রেস ইনস্যুরেন্স লিমিটেড। যদিও ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে ভালো মুনাফা করেছে কম্পানিটি। তবে কোনো লভ্যাংশ না দিয়ে পুরোটাই রেখে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে প্রতারণা মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে গতকাল মঙ্গলবার কম্পানিকে তলব করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। কম্পানি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনার পর সিদ্ধান্ত বদলের বিষয়ে মনোভাব প্রকাশ করেছে কম্পানি। বিনিয়োগকারীদের সুখবর দেওয়ার জন্য পরামর্শকও নিয়োগ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এক্সপ্রেস ইনস্যুরেন্স পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির পর শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে গত ২৪ আগস্ট। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়। শেয়ার ছেড়ে ২৬ কোটি সাত লাখ ৯০ হাজার টাকা উত্তোলন করেছে কম্পানিটি। ২০১৯ সালে কম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ১.৩১ টাকা। আর শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) ১৮.০৪ টাকা।

সূত্র জানায়, ভালো মুনাফা করলেও কোনো লভ্যাংশ দেবে না বলে জানিয়েছে কম্পানিটি। এর আগে লেনদেন শুরুর এক মাস না গড়াতেই কোনো লভ্যাংশ না দেওয়ার নজির নেই। এই ঘটনাকে বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে প্রতারণা মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। যার জন্য মঙ্গলবার কম্পানি কর্তৃপক্ষকে কমিশনে তলব করা হয়।

 

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, “এক্সপ্রেস ইনস্যুরেন্সের ‘নো’ ডিভিডেন্ড সংক্রান্ত মূল্য সংবেদনশীলসংক্রান্ত তথ্য কমিশনের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ লঙ্ঘিত হয়েছে বলে জানা যায়। এর আলোকে কমিশন এক্সপ্রেস ইনস্যুরেন্স কর্তৃপক্ষের সঙ্গে মতবিনিময় করে। এ বিষয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।”

এ বিষয়ে এক্সপ্রেস ইনস্যুরেন্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) কে এম সাইদুর রহমান বলেন, “কমিশন ডেকে তালিকাভুক্তির প্রথম বছরেই ‘নো’ ডিভিডেন্ড ঘোষণায় হতাশা প্রকাশ করেছে। একই সঙ্গে বিনিয়োগকারীরা যাতে বঞ্চিত না হন, সে লক্ষ্যে একটি সুখবর দিতে বলেছে। আইনের মধ্যে থেকে আমাদের এ কাজ করার জন্য বলেছে।”

তিনি বলেন, ‘কমিশনের সঙ্গে আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে কিভাবে সুখবর দেওয়া যায়, সে বিষয়ে একটি অডিট ফার্মকে পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছি। তাদের পরামর্শের আলোকে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সেটা অন্তর্বর্তীকালীন লভ্যাংশ বা অন্য কোনো উপায়ে সুখবর দেওয়ার সুযোগ থাকলে, পরামর্শকের পরামর্শের আলোকে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা