kalerkantho

রবিবার । ১২ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৯ সফর ১৪৪২

বিডার অনুষ্ঠানে সালমান ফজলুর রহমান

প্রধানমন্ত্রীর উদার বিনিয়োগনীতির কারণে মাথাপিছু আয় বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রধানমন্ত্রীর উদার বিনিয়োগনীতির কারণে মাথাপিছু আয় বেড়েছে

‘দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ ছাড়া আমরা কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছতে পারব না। ১০ বছর আগে হয়তো এটা অকল্পনীয় ছিল যে আমাদের রপ্তানি আয়, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ও বাজেট এত বড় হবে। ১০ বছর ধরে গড়ে আমাদের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ শতাংশের ওপর। গত বছর যা ছিল ৮.১ শতাংশ। বেড়েছে মানুষের মাথাপিছু আয়। যা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দক্ষ নেতৃত্ব ও উদার বিনিয়োগবান্ধব নীতির কারণে’—গতকাল বুধবার বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) আয়োজিত অনলাইন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রভাবে এ বছর আমাদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব হয়নি। তবু এগিয়ে যেতে হবে। সৃষ্টি করতে হবে ব্যবসা ও বিনিয়োগের জন্য সেরা পরিবেশ। আগামী বছরের মধ্যেই বিশ্বব্যাংকের ইজি অব ডুয়িং বিজনেস বা সহজে ব্যবসা সূচকে দুই অঙ্কের ঘরে উন্নয়নই আমাদের লক্ষ্য। সে লক্ষ্যেই কাজ করে যেতে হবে।’

অনুষ্ঠানে বিডার ওয়ান স্টপ সার্ভিস (ওএসএস) পোর্টালে আজ থেকে নতুন তিনটি সেবা যুক্ত হয়েছে। ওএসএস পোর্টালে যুক্ত হওয়া সেবা তিনটি হলো—নির্বাচন সচিবালয়ের জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাই করা, সুরক্ষা সেবা বিভাগের সিকিউরিটি ক্লিয়ারেন্স এবং চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের ভূমি ব্যবহার ছাড়পত্র।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘উন্নত বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ এবং ব্যবসা সহজ করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে বিডা। এখন পর্যন্ত আমরা ১২টি সংস্থার সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করেছি। কিছুদিনের মধ্যে আরো ১০টি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই হবে। ফলে বিনিয়োগকারীদের ওএসএসের মাধ্যমে আরো বেশি সেবা দেওয়া সম্ভব হবে।’ আগামী বছরের মধ্যেই ৩৫টি সেবা প্রদানকারী সংস্থার ১৫০টিরও বেশি সেবা প্রদানের আশা ব্যক্ত করেন বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান।

এ সময় নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আলমগীর, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. শহীদুজ্জামান এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লাহ খন্দকার নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সেবাগুলো বাস্তবায়নের পদ্ধতি তুলে ধরেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা