kalerkantho

বুধবার । ১৫ আশ্বিন ১৪২৭ । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১২ সফর ১৪৪২

শীর্ষ অর্থনীতির পথে চীন

বাণিজ্য ডেস্ক   

১০ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শীর্ষ অর্থনীতির পথে চীন

২০২৪ সাল নাগাদ বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রকে অতিক্রম করে যাবে চীন। আর তৃতীয় অবস্থানে চলে আসবে ভারত। বিশ্বব্যাংক ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) পূর্বাভাসে এমন তথ্য উঠে এসেছে। এতে বলা হয়, ২০২৪ সাল নাগাদ জিডিপির আকারের দিক থেকে শীর্ষ পাঁচ দেশের বেশির ভাগই হবে এশিয়ার। আর এ দৌড়ে পিছিয়ে পড়বে ইউরোপীয় দেশগুলো।

বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশ যুক্তরাষ্ট্র, আর দ্বিতীয় অবস্থানে চীন। কিন্তু ১৯৯০ সাল থেকেই চীনের যে অর্থনৈতিক অগ্রগতি, তা ধারাবাহিক ও সুসংহত। এদিকে ভারত ও ইন্দোনেশিয়া সম্প্রতি বিশ্বের শীর্ষ ১০ অর্থনীতির দেশের তালিকায় প্রবেশ করেছে। ২০২৪ সাল নাগাদ ভারতের অবস্থান হবে তৃতীয় এবং ইন্দোনেশিয়ার পঞ্চম। বর্তমানে তৃতীয় স্থানে থাকা জাপান সে সময় নাগাদ এক ধাপ পিছিয়ে চতুর্থ অবস্থানে যাবে। আর রাশিয়া উঠে আসবে ষষ্ঠতম অবস্থানে। সপ্তম স্থানে আসবে জার্মানি, অষ্টম ব্রাজিল, নবম যুক্তরাজ্য ও দশম স্থানে থাকবে ফ্রান্স।

জিডিপির আকারে এশিয়ার এ উত্থানের পেছনে একটি বড় কারণ মনে করা হচ্ছে একটি উদীয়মান মধ্যবিত্ত শ্রেণি ও তরুণ জনশক্তি। তবে চীনে রাষ্ট্রীয় আইনের কারণে শিশু জন্মের হার কম হওয়ায় দেশটি বয়স্ক জনসংখ্যার চাপে আবারও নিম্নমুখী হতে পারে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম (ডাব্লিউইএফ) জানায়, এর বিপরীতে ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন ও মালয়েশিয়া তাদের জনশক্তি উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধির মাধ্যমে অবস্থান শক্তিশালী করবে এবং জাতীয় আয় বাড়বে।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) জানায়, চীনের হুয়াওয়ে, ভারতের টাটাসহ এশিয়ার বহুজাতিক কম্পানিগুলো এরই মধ্যে তাদের বৈশ্বিক অবস্থান জানান দিয়েছে। সামনে তাদের অবস্থান আরো শক্তিশালী হবে। কিন্তু এশিয়ায় দ্রুত আয় বৃদ্ধি অভ্যন্তরীণ কিছু সমস্যাও তৈরি করবে। যেমন শহর ও গ্রামের মানুষের মধ্যে আয়বৈষম্য আরো বাড়বে। পরিবেশগত ক্ষতি বাড়বে এবং সুশাসন ও প্রাতিষ্ঠানিক চ্যালেঞ্জ বাড়বে। সূত্র : ডাব্লিউইএফ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা