kalerkantho

বুধবার । ২১ শ্রাবণ ১৪২৭। ৫ আগস্ট  ২০২০। ১৪ জিলহজ ১৪৪১

ক্রেস্ট সিকিউরিটিজে তালা

বিনিয়োগকারীদের মূলধন নিয়ে পলাতক মালিক গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিনিয়োগকারীদের মূলধন নিয়ে পলাতক মালিক গ্রেপ্তার

শহীদ উল্লাহ

শেয়ার কেনাবেচায় মধ্যস্থতাকারী ক্রেস্ট সিকিউরিটিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শহীদ উল্লাহকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। তাঁর স্ত্রী নিপা সুলতানাসহ আরো তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল সোমবার দুপুর ১২টার দিকে লক্ষ্মীপুর-নোয়াখালী সীমান্ত এলাকা থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। অন্য গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন খোরশেদ ও জুয়েল।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) উপকমিশনার এইচ এম আজিমুল হক এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শেয়ার ও অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় পল্টন থানায় দায়ের করা মামলায় ক্রেস্ট সিকিউরিটিজের এমডি মো. শহীদ উল্লাহ ও তাঁর স্ত্রী নিপা সুলতানাকে নোয়াখালীর সীমান্ত এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।’

মামলাটি বর্তমানে তদন্ত করছে গোয়েন্দা পুলিশ। বাদী এজাহারে বলেছেন, তিনি ও তাঁর পার্টনারের কাছ থেকে এক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন শহীদ উল্লাহ ও তাঁর স্ত্রী। এ বিষয়ে তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করছে ডিবি।

গত ২৩ জুন থেকে হঠাৎ সব অফিসে তালা লাগিয়ে লাপাত্তা হন ক্রেস্ট সিকিউরিটিজের মালিক। এ ঘটনায় জমানো বিনিয়োগ নিয়ে শঙ্কায় পড়েন বিনিয়োগকারীরা। ঘটনার পরপরই বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ত্বরিত গতিতে পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) দুই প্রতিনিধিসহ তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটি বিনিয়োগকারীদের অর্থ লুটপাটের পরিমাণসহ বিস্তারিত তুলে ধরবে। একই সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের শেয়ার বিক্রি করলেও তাঁরা কেন মুঠোফোনে মেসেজ পাননি, এ জন্য সিডিবিএলের কোনো ঘাটতি আছে কি না, তা অনুসন্ধান করবে। ক্রেস্টের মালিক যেন বিদেশে যেতে না পারেন, সে লক্ষ্যে ডিএসই থেকে পল্টন থানায় অভিযোগ করা হয়।

মন্তব্য