kalerkantho

শুক্রবার । ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৫ জুন ২০২০। ১২ শাওয়াল ১৪৪১

পোল্ট্রিশিল্পের আগাম কর প্রত্যাহার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩০ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পোল্ট্রিশিল্পে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি ও উপকরণ আমদানিতে আগাম কর (এটি) প্রত্যাহার করা হয়েছে। ২০১৯ সালের ৩০ জুনের একটি এসআরও সংশোধনের মাধ্যমে এটি প্রত্যাহার করা হয়েছে। গত বুধবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম সই করা প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

সেখানে বলা হয়, আমদানীকৃত ড্রেজার, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর কর্তৃক নিবন্ধিত পোল্ট্রি, গবাদি পশুর প্রতিষ্ঠান, এনিম্যাল হেলথ কম্পানি, পোল্ট্রি, লাইভস্টক ও ডেইরি ফিড প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান। বা মৎস্য অধিদপ্তর কর্তৃক নিবন্ধিত ফিশারি ও মৎস্য ফিড প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সব পণ্য, সয়াবিন মিল, কর্ন গ্লুটিন মিল, রেপসিড এক্সট্রাকশনসহ মৎস্য ও পশুখাদ্য উৎপাদনে ব্যবহৃত অন্যান্য আমদানীকৃত খাদ্য উপকরণ বা কাঁচামাল এবং এক দিন বয়সী মুরগির বাচ্চার ক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য হবে।

বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিল সূত্র জানায়, বিগত ১০ বছরে আন্তর্জাতিক বাজারে ভুট্টা, সয়াবিন মিলসহ অত্যাবশ্যকীয় কাঁচামালের দাম অব্যাহতভাবে বেড়েছে। বিগত ১২ বছরে পোল্ট্রি ফিডের কাঁচামালের দাম ক্ষেত্রবিশেষে ২৭ শতাংশ থেকে ৩১৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। মুরগির মাংস ও ডিমের উৎপাদন খরচ দিন দিন বাড়ছে কারণ বিগত ১০ বছরে আন্তর্জাতিক বাজারে ভুট্টা, সয়াবিন মিলসহ অত্যাবশ্যকীয় কাঁচামালের দাম অব্যাহতভাবে বেড়েছে। সেই সঙ্গে বেড়েছে ওভারহেড খরচ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা