kalerkantho

সোমবার  । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭। ৩ আগস্ট  ২০২০। ১২ জিলহজ ১৪৪১

৫০০০ কোটি টাকার প্রণোদনায় স্বস্তিতে উদ্যোক্তারা

করোনাভাইরাসের প্রভাবে যখন বিদেশি ক্রেতারা প্রতিদিন শত কোটি ডলারের রপ্তানি আদেশ বাতিল করছিলেন, ঠিক সেই মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রীর জাতির উদ্দেশে ভাষণ স্বস্তি দিল দেশের ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষকে। বিশেষ করে রপ্তানি খাতের শ্রমিকদের বেতনে সহায়তা হিসেবে পাঁচ হাজার কোটি টাকার ঘোষণা নতুন উদ্যম এনে দিয়েছে তৈরি পোশাক খাতসহ রপ্তানি খাতের উদ্যোক্তা ও লাখ লাখ শ্রমিকের মধ্যে। লিখেছেন এম সায়েম টিপু

২৭ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৫০০০ কোটি টাকার প্রণোদনায় স্বস্তিতে উদ্যোক্তারা

প্রধানমন্ত্রী সময়োপযোগী উদ্যোগ নিলেন

শেখ ফজলে ফাহিম, সভাপতি, এফবিসিসিআই

করোনায় বিদ্যমান সংকট অনুধাবন করে প্রধানমন্ত্রী সময়োপযোগী উদ্যোগ নিয়েছেন। এর ফলে দেশের দিনমজুর থেকে সব শ্রেণি উপকৃত হবে। ব্যবসায়ীদের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক এর আগে বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণা দিয়েছে, আগামী জুন পর্যন্ত কোনো ঋণগ্রহীতা ঋণ শোধ না করলেও ঋণের শ্রেণিমানে কোনো পরিবর্তন আনা যাবে না। এ ছাড়া রপ্তানি খাতে পাঁচ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা—সব কিছু মিলে দেশের আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক খাতে আসন্ন সংকট মোকাবেলায় সহায়ক একটি উদ্যোগ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

 

স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতি তৈরি হলো

ড. রুবানা হক, সভাপতি, বিজিএমইএ

তৈরি পোশাক খাতের এই ক্রান্তিলগ্নে যখন লাখ লাখ শ্রমিক বেকার হতে যাচ্ছিল এবং রপ্তানি আদেশ বাতিল হচ্ছিল, ঠিক সেই সময় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা পুরো তৈরি পোশাক খাতের জন্য একটি বড় স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতি তৈরি করেছে। আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ। পোশাক খাত যে হোঁচট খাচ্ছে। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণা সহায়ক হবে।

 

 

এটি সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

শামস মাহমুদ, সভাপতি, ডিসিসিআই

রপ্তানি খাতে পাঁচ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনাকে স্বাগত জানাই। প্রধানমন্ত্রী সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। অবশ্যই এটি সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। তবে দেশে তৃণমূল অর্থনীতিতে বড় অবদান রাখছেন ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা (এসএমই)। তাঁদের বিষয়টি দ্বিতীয় পদক্ষেপ হিসেবে বিবেচনায় নেওয়ার জন্য আহ্বান জানাই।

 

 

 

তহবিল ঘোষণা দেওয়ায় আমরা কৃতজ্ঞ

মোহাম্মদ হাতেম, জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি, বিকেএমইএ

ব্যবসায়ীদের কষ্ট অনুভব করে প্রধানমন্ত্রী তহবিল ঘোষণা দেওয়ায় আমরা কৃতজ্ঞ। তবে এই অর্থ দিয়ে দুই মাসের বেতন ও ঈদ বোনাস দেওয়া সম্ভব নয়। এটি আরো বাড়ানোর প্রয়োজন আছে। তার পরও গুরুত্ব বিবেচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে আশা করি।

 

 

দূরদর্শী দৃষ্টিভঙ্গির ফল এই প্যাকেজ

মো. আব্দুল কাদের খান, সভাপতি, বিজিএপিএমইএ 

প্রধানমন্ত্রী তাঁর দূরদর্শী দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে রপ্তানিমুখী শিল্পের মালিকরা যাতে করে শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রদান করতে পারেন, সে জন্য পাঁচ হাজার কোটি টাকার একটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন। বিজিএপিএমইএ এক হাজার সাত শর অধিক গার্মেন্ট অ্যাকসেসরিজ ও প্যাকেজিং পণ্যের শতভাগ রপ্তানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলোর একটি বাণিজ্যিক সংগঠন, যা বাংলাদেশের পোশাকশিল্পের ৯৫ শতাংশ অ্যাকসেসরিজ পণ্য স্থানীয়ভাবে সরবরাহ করে থাকে। তাই প্রণোদনা থেকে বরাদ্দ পেয়ে এ খাতের কর্মচারী ও কর্মকর্তার বেতন-ভাতাদি প্রদান করে উৎপাদন অব্যাহত রাখতে সহায়ক হবে।

মন্তব্য