kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৬ চৈত্র ১৪২৬। ৯ এপ্রিল ২০২০। ১৪ শাবান ১৪৪১

করোনাভাইরাসের প্রভাব

সাত মাসে রাজস্ব ঘাটতি ৩৯ হাজার কোটি টাকা

গত অর্থবছরের তুলনায় রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধি ৬.৭২ শতাংশ

ফারজানা লাবনী   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে চলছে মন্দা। এর কিছুটা প্রভাব বাংলাদেশেও পড়েছে। শিল্প খাতে কাঁচামালের সংকট, চীন থেকে আমদানি করা পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে ক্ষেত্রবিশেষে রাজস্ব আদায়ে নেতিবাচক প্রভাব দেখা দিয়েছে।

গত জানুয়ারিতে রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি আরো বেড়েছে। এতে চলতি অর্থবছরের গত সাত মাসে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) রাজস্ব ঘাটতি প্রায় ৩৯ হাজার ৫৪২ কোটি টাকা হয়েছে। তবে গত অর্থবছরের তুলনায় রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধি আছে প্রায় ৬.৭২ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের শেষ হিসাবে রাজস্ব ঘাটতি কাটিয়ে উঠতে একগুচ্ছ কার্যকরী কৌশল সামনে রেখে কাজ করছে এনবিআর। অর্থনীতি বিশ্লেষকরা বলেন, অর্থবছরের শেষ সময়ে আদায় বাড়ে। এতে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা অর্জন না হলেও ঘাটতি কমে যাবে।

চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে গত ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) এনবিআরের রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধি ছিল ৭.৩৯ শতাংশ। এ সময়ে এনবিআরের রাজস্ব ঘাটতি ৩১ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা।

এনবিআর সাবেক চেয়ারম্যান মো. আবদুল মজিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, চীনে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে এক ধরনের মন্দা দেখা দিয়েছে। চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্য জড়িত। এরই মধ্যে দেশের বড় বাণিজ্য সংগঠন এফবিসিসিআইও তা সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছে। তাই আমার বিচারে চীনের স্বাস্থ্যগত এ সমস্যার কারণে বাংলাদেশে রাজস্ব আদায়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। চলতি অর্থবছরে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা তিন লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ভ্যাট বা মূসক খাতে সর্বোচ্চ এক লাখ ১৭ হাজার ৬৭১ কোটি ৮৫ লাখ টাকা লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আয়কর খাতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ এক লাখ ১৫ হাজার ৫৮৮ কোটি ১৬ লাখ টাকা ও শুল্ক খাতে ৯২ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে।

এনবিআরের সর্বশেষ হিসাবে জুলাই-ডিসেম্বর পর্যন্ত রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক লাখ ৩৬ হাজার ৬৬৮ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। এর বিপরীতে রাজস্ব আদায় হয়েছে এক লাখ পাঁচ হাজার ১৬১ কোটি ৩৫ লাখ টাকা, যা লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৩১ হাজার ৫০৭ কোটি ৬৩ লাখ টাকা কম। গত ছয় মাসে আমদানি-রপ্তানি পর্যায়ে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৩১ হাজার ৪২৩ কোটি ৮১ লাখ টাকা, স্থানীয় পর্যায়ে ভ্যাট ৪১ হাজার ৯০ কোটি ২২ লাখ টাকা ও আয়কর-ভ্রমণ কর ৩২ হাজার ৬৪৬ কোটি টাকা, যা লক্ষ্যমাত্রার ৭৬.৯৫ শতাংশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা