kalerkantho

বুধবার । ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ১ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থার সিদ্ধান্ত

প্রভিশন রাখতে দুই বছর সময় পেল মার্চেন্ট ব্যাংক

ইতিবাচক প্রভাবের আশা পুঁজিবাজারে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



প্রভিশন রাখতে দুই বছর সময় পেল মার্চেন্ট ব্যাংক

নিজের হিসাব ও বিনিয়োগকারীর পোর্টফোলিওতে অনাদায়ি ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন রাখতে আরো দুই বছর সময় পেল মার্চেন্ট ব্যাংকাররা। মার্চেন্ট ব্যাংকের পুনর্মূল্যায়নজনিত অনাদায়ি ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন সংরক্ষণের চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দেওয়া হয়।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মার্চেন্ট ব্যাংক অনাদায়ি ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন রাখতে সময় পাবে ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। পুঁজিবাজারে বড় দরপতনের কারণে মার্চেন্ট ব্যাংকের প্রভিশন রাখতে হিমশিম খাচ্ছে। নতুন ঘোষণায় প্রভিশন রাখতে দুই বছর সময় পাবে মার্চেন্ট ব্যাংক। এতে করে লোকসান হিসাবে কিছুটা সুবিধা পাবে তারা। সম্প্রতি স্টক ব্রোকার ও স্টক ডিলারদের এমন সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল বুধবার পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের-বিএসইসি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কমিশনের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রভিশন রাখার সময় বাড়ানো হয়।

এ ছাড়া বিএসইসির চেয়ারম্যান এম খায়রুল হোসেনের সভাপতিত্বে ১০ কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে একুশ ফার্স্ট ইউনিট ফান্ডের খসড়া প্রসপেক্টাস অনুমোদন পেয়েছে। দীর্ঘ সময় পদশূন্য থাকার পর ব্যবস্থাপনা পরিচালক পেয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ-ডিএসই ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ-সিএসই।

সূত্র জানায়, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোকে অনাদায়ি ক্ষতির বিপরীতে প্রভিশন রাখার সুযোগ ২০১৩ সালে চালু হয়। ওই সময় বিএসইসি থেকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বলা হয়, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো এখন পুনর্মূল্যায়নজনিত ক্ষতির ক্ষেত্রে নিয়মানুযায়ী ১০০ ভাগের পরিবর্তে ২০ শতাংশ হারে প্রভিশন রাখতে পারবে। তবে তা ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর থেকে ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সমান পাঁচটি ত্রৈমাসিক অংশে রাখতে হবে। এই সুযোগ পরবর্তীতে আরো কয়েক ধাপে বাড়ানো হয়।

সূত্র জানায়, প্রভিশন সংরক্ষণে সর্বপ্রথম এ সুযোগ বাড়ানো হয় ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এক বছরের জন্য। এরপর বাজার পরিস্থিতি উন্নতি না হওয়ায় এ মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। কিন্তু ২০১৫ সালে বাজার পরিস্থিতি আরো মন্দাভাব থাকায় মার্চেন্ট ব্যাংকারদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রভিশন সংরক্ষণের মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত বাড়ায় বিএসইসি।

এরপর ২০১৭ সালে বাজার পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়। তবে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর পক্ষ থেকে দাবি করা হয় যে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে তা পূরণ করতে আরো সময়ের প্রয়োজন। এ জন্য প্রভিশন সংরক্ষণের মেয়াদ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত বাড়ানোর দাবি করা হয়। বিএসইসি সেই দাবি মেনে নিয়ে এক বছর সময় বাড়ায়। ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগেই আরেক দফা বাড়িয়ে প্রভিশন সংরক্ষণের সুযোগ ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত করা হয়। এরপর আরো এক দফা বাড়িয়ে চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর করা হয়।

এমডি পেল দুই স্টক এক্সচেঞ্জ : দীর্ঘদিন পদ শূন্য থাকার পর এবার ব্যবস্থাপনা পরিচালক পেয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ-ডিএসই ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ-সিএসই। গতকাল কমিশনের সভায় ডিএসই ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন কাজী ছানাউল হক। শেয়ারহোল্ডার পরিচালকদের ৭৫ শতাংশ তাঁকে এমডি নিয়োগ দিতে আপত্তি জানালেও সেটা না মেনে নিয়োগ দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। আর সিএসইতে এমডি হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মামুন-উর-রশিদ।

ডিএসইকে ব্যবস্থাপনা থেকে মালিকানা পৃথকীকরণে ডি-মিউচুয়ালাইজেশন স্কিমের পর ডিএসইর দ্বিতীয় ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে ২০১৬ সালের ২৯ জুন নিয়োগ পান সাবেক ব্যাংকার কে এ এম মাজেদুর রহমান। যার মেয়াদ শেষ হয়েছে গত বছরের ১১ জুলাই। তার পর থেকেই পদটি খালি। খালি পদটি পূরণে দুই দফায় বিজ্ঞপ্তি দিয়েও যোগ্য ব্যক্তিকে পায়নি ডিএসই। গত ১০ ডিসেম্বর তৃতীয় দফায় এমডির সন্ধানে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ডিএসই।

একুশ ফান্ডের প্রসপেক্টাস অনুমোদন : ‘একুশ ফার্স্ট ইউনিট ফান্ড’ নামের একটি বে-মেয়াদি মিউচুয়াল ফান্ডের প্রসপেক্টাস অনুমোদন পেয়েছে। বিএসইসির এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এ মিউচুয়াল ফান্ডেও প্রাথমিক লক্ষ্যমাত্রা ১০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ফান্ডটির উদ্যোক্তা ‘একুশ ওয়েলথ ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড’ এক কোটি টাকা দেবে। বাকি ৯ কোটি সব বিনিয়োগকারীর জন্য বরাদ্দ থাকবে। বিনিয়োগকারীদের জন্য বরাদ্দ অংশ ইউনিট বিক্রির মাধ্যমে উত্তোলন করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা