kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৩০ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বদ্বীপ পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে বছরে প্রবৃদ্ধি বাড়বে ১.৫%

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো অনুমোদন পাওয়া শতবর্ষী ডেল্টা প্ল্যান বা বদ্বীপ পরিকল্পনা যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করা গেলে প্রতিবছর দেড় শতাংশ হারে জিডিপির প্রবৃদ্ধি বাড়বে বলে এক গবেষণায় উঠে এসেছে। ‘ইন্টিগ্রেটেড অ্যাসেসমেন্ট ফর দ্য বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যান-২১০০ : অ্যানালিসিস অব সিলেক্টেড ইন্টারভেনশন’ শীর্ষক ওই গবেষণায় বলা হয়েছে, জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে ডেল্টা প্ল্যান সঠিকভাবে বাস্তবায়নের বিকল্প নেই। বিশেষ করে উপকূলীয় অঞ্চলের জন্য সমন্বিত উন্নয়ন মডেল গ্রহণ করতে হবে। গবেষণায় আরো বলা হয়েছে, বদ্বীপ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন না হলে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি কমবে বছরে ১.৩ শতাংশ। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রতিবেদনটি আনুষ্ঠানিকভাবে উপস্থাপন করা হয়।

পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের (জিইডি) আয়োজনে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী। পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারটি সঞ্চালনা করেন সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম। প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) অধ্যাপক মনসুর রহমান। এ সময় পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সিনিয়র সচিব) সাহিন আহমেদ চৌধুরী, শামীমা নার্গিসসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

গবেষণায় বলা হয়েছে, বদ্বীপ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন না হলে ২০২৭ সালের মধ্যে অতিদারিদ্র্য শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আসা সম্ভব নয়। দেশের ১৩৯টি বাঁধ সংরক্ষণের অভাবে প্রায় ধ্বংস হয়ে গেছে। যদি এসব বাঁধ সংরক্ষণ করা সম্ভব হয় তাহলে মে থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বন্যা ও উপকূলীয় অঞ্চলকে লবণাক্ততামুক্ত রাখা সম্ভব হবে। গবেষণা প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, উপকূলীয় অঞ্চলে বাঁধগুলো চার মিটার উঁচু করে তৈরি হলেও সংস্কারের অভাবে এখন দুই থেকে আড়াই মিটার উঁচু রয়েছে। এসব বাঁধ অন্তত ছয় মিটার উঁচু করে সংস্কার করতে হবে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে উপকূলীয় অঞ্চল রক্ষা করতে হলে বনায়নের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। এতে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব থেকে রক্ষা সম্ভব হবে। যেকোনোভাবে হোক সবুজ বেষ্টনী তৈরি করতে হবে। এ ছাড়া খুলনা ও সাতক্ষীরা অঞ্চলের জন্য বাঁধ সংস্কারের সঙ্গে প্রয়োজনীয় স্লুইস গেট তৈরি করতে হবে। নীতি ও বিজ্ঞানের মধ্যে সমন্বয় করতে হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে যেভাবে ধাপে ধাপে পরিকল্পনা রয়েছে তা সোভিয়েতরাও করতে পারেনি। যেকোনো পরিকল্পনাই করা হোক না কেন তার মূলেই রয়েছে বাংলাদেশের উন্নয়ন। শত বছরের এই পরিকল্পনা হচ্ছে একটি আম্ব্রেলা প্রকল্প।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা