kalerkantho

শনিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৮ নভেম্বর ২০২০। ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

গুজবের কারণে ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না পুঁজিবাজার : অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গুজবের কারণে ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না পুঁজিবাজার : অর্থমন্ত্রী

গুজবের কারণে পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেছেন, পুঁজিবাজার চালাচ্ছে গুজব। তাই গুজব বন্ধে প্রচলিত আইন কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার শেরেবাংলানগরে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের পরিচালনা পর্ষদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। বৈঠকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব আসাদুল ইসলাম, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান এম খায়রুল হোসেন, ডিএসই চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবুল হাশেম, ডিএসই পরিচালক মিনহাজ মান্নান ইমন ও রকিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘পুঁজিবাজার এখন যে অবস্থায় আছে তা থেকে কিভাবে বের করে নিয়ে আসতে পারি তা নিয়ে কথা বলেছি। কিছু দাবি এসেছে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে, আমরা অ্যাডভান্স ইনকাম ট্যাক্স (এআইটি) কেটে নিই সেটাতে ছাড় দেওয়া বা কমানো। আমরা সেটা বিবেচনা করার কথা বলেছি।’

তিনি বলেন, ‘এ ছাড়া ডিএসইর দাবি ছিল—অন্যান্য ব্যবসার ক্ষেত্রে যেভাবে কোনো ঋণগ্রহীতা ব্যাংকে গিয়ে ঋণ নিতে পারে ঠিক সেভাবে পুঁজিবাজারে যারা ব্যবসা করে তারাও যেন ঋণ পায়। আমার জানা মতে, দেশের কারোর জন্যই এ ধরনের কোনো বাধ্যবাধকতা নেই যে ব্যাংকে যেতে পারবে না। আমরা বলেছি, ব্যাংক-গ্রাহক ভিত্তিতে অন্যরা যেভাবে ঋণ পায়, সুযোগ-সুবিধা পায়, ঠিক সেরকমভাবে পুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারীদের জন্যও সুযোগ-সুবিধা থাকবে। পুঁজিবাজারের ভালো দিক হলো, তারা অতীতে সরকারের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে শোধ দিয়েছে। সুতরাং এ সুযোগও থাকবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘পুঁজিবাজারে নিয়ম-নীতির পরিপালনে সমস্যা আছে। পুঁজিবাজার চালাচ্ছে গুজব। এই গুজবের কারণে পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না। তাই গুজব বন্ধে যে প্রচলিত আইন আছে তা যেন কঠোরভাবে বাস্তবায়ন হয় সেটিও আমরা করে দেব। এটি অবশ্যই বাস্তবায়ন করব। বিদ্যমান আইনগুলোকে আমরা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করব।’

পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আছে। তারা কেন গুজব প্রতিরোধ করতে পারে না—এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এজেন্সিগুলো তখনই ক্ষমতা প্রয়োগ করবে যখন আইন শক্তিশালী থাকে। আইনে ত্রুটি থাকলে তারা পারবে না। আমি বিএসইসি চেয়ারম্যানকে আইন শতভাগ প্রয়োগের জন্য বলেছি।’ অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ডিএসই পরিচালনা পর্ষদের দাবি হলো, কিছু ভালো শেয়ার তলিকাভুক্ত করা। আমি তাদের আশ্বস্ত করেছি। আমরা এর ওপর কাজ করছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা