kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

নতুন পেঁয়াজ আসছে এক সপ্তাহের মধ্যেই

জাহাঙ্গীর হোসেন, রাজবাড়ী   

৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশের চাহিদার প্রায় ১৪ শতাংশ পেঁয়াজ উৎপাদন হয় রাজবাড়ী জেলায়। বিগত বছরও এ জেলায় পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে লক্ষ্যমাত্রার অধিক। ফলে এবারও চলছে পুরোদমে চাষাবাদ। তবে মূলকাটা পেঁয়াজ শোভা এখন মাঠে মাঠে। এক সপ্তাহের মধ্যে তাঁরা এ পেঁয়াজ পুরোদমে বাজারজাত করতে পারবেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জেলার সবচেয়ে বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হয় রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি, পাংশা ও কালুখালী উপজেলায়। সেখানে গিয়ে দেখা গেছে, মাঠে মাঠে শোভা পাচ্ছে পেঁয়াজ গাছ।

জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুরের কৃষক ফজলুল করিম জানান, তাঁরা সাধারণত তিন ধরনের পেঁয়াজের আবাদ করে থাকেন। একটি হলো সরাসরি ছোট আকারের পেঁয়াজ, অন্যটি পেঁয়াজের চারা এবং শেষটি হলো ফুল উৎপাদনকারী পেঁয়াজ। একে বলা হয় ‘মূলকাটা পেঁয়াজ’। মূলকাটা পেঁয়াজ দ্রুত বৃদ্ধি হয়। সেই সঙ্গে এ পেঁয়াজ থেকে ফুল ও বীজ উৎপাদন হয়। পেঁয়াজ ফুল বাজারে তরকারি হিসেবেও বিক্রি করা হয়। এরই মধ্যে মূলকাটা পেঁয়াজ মাঠে অনেকটাই বড় হয়ে গেছে। যদিও কোনো কোনো কৃষক বাজারে অধিক দাম দেখে ওই পেঁয়াজ পুষ্ট হওয়ার আগেই তা তুলে বাজারজাত করছেন। তবে এক সপ্তাহের মধ্যে পুরোদমে এ পেঁয়াজ বাজারে বিক্রি হবে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, বিগত বছর পেঁয়াজ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৭ হাজার ১৩০ হেক্টর জমিতে। আবাদ হয়েছিল ২৮ হাজার ২৯৫ হেক্টর জমিতে, যা ছিল লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে এক হাজার ১০৫ হেক্টর জমি বেশি। অন্যদিকে পেঁয়াজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল দুই লাখ ৯৮ হাজার ৪৩০ মেট্রিক টন। উৎপাদন হয়েছে তিন লাখ ১১ হাজার ৬৮ মেট্রিক টন, যা কি না উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১২ হাজার ৬৩৮ মেট্রিক টন বেশি। চলতি মৌসুমেও পেঁয়াজ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২৭ হাজার ১৩০ হেক্টর জমিতে এবং পেঁয়াজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে দুই লাখ ৯৮ হাজার ৪৩০ মেট্রিক টন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ফজলুর রহমান জানান, পেঁয়াজ উৎপাদনে রাজবাড়ী জেলা তৃতীয়, পাবনা জেলা প্রথম ও ফরিদপুর জেলা দ্বিতীয়। যে কারণে দেশের গড় চাহিদার প্রায় ১৪ শতাংশ পেঁয়াজ উৎপাদন হয় রাজবাড়ী জেলায়। ফলে রাজবাড়ীতে এবারও পেঁয়াজ আবাদ ও উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি মনে করছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা