kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

ইতিবাচক ধারায় পুঁজিবাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শেয়ার বিক্রির চাপ থাকায় দুই কার্যদিবস পতনের পর আবারও ইতিবাচক ধারায় ফিরেছে দেশের পুঁজিবাজার। কেনার পরিমাণ বাড়ায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সূচক ও লেনদেন বেড়েছে। অন্য বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক কমলেও বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। গতকাল বুধবার ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪৬২ কোটি ছয় লাখ টাকা। আর সূচক বেড়েছে ৫ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৪১২ কোটি ৩৭ লাখ টাকা, আর সূচক কমেছিল ৩৭ পয়েন্ট। সে হিসাবে সূচক ও লেনদেন উভয়ই বৃদ্ধি পেয়েছে।

লেনদেন শুরু হলে কেনার চাপে ডিএসইর সূচকে বড় উত্থান ঘটে। দিন শেষে সূচক দাঁড়ায় চার হাজার ৭০২ পয়েন্ট। ডিএস-৩০ মূল্যসূচক ০.৩৮ পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ৬১৭ পয়েন্ট ও ডিএসইএস শরিয়াহ সূচক ০.৭০ পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ৬১ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হওয়া ৩৫২টি কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৬৭টির, কমেছে ১৩৪টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৫১টি কম্পানির শেয়ারের দাম। লেনদেনের ভিত্তিতে শীর্ষে রয়েছে সোনারবাংলা ইনস্যুরেন্স। সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২৮ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। আর সূচক কমেছে ৮ পয়েন্ট। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ২২ কোটি ১৯ লাখ টাকা। আর সূচক কমেছিল ৬৪ পয়েন্ট। গতকাল লেনদেন হওয়া ২৫৬টি কম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১১৫টির, কমেছে ১০৩টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৮টি কম্পানির শেয়ারের দাম।

লোকসানি কম্পানির শেয়ার কেনার হিড়িক : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজের লোকসানের তথ্য প্রকাশের পর কম্পানিটির শেয়ার কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে ক্রেতারা। মূলধনসংকটে উৎপাদন বন্ধ হওয়া এই কম্পানি লোকসান করলেও বিনিয়োগকারীরা শেয়ার কিনছে। যাতে গত দুই দিন বিনিয়োগকারীর আগ্রহের সারিতে ছিল এই কম্পানিটির শেয়ার।

কম্পানিটি জানায়, চলতি মূলধনের অভাবে কারখানা বন্ধ রয়েছে। অক্টোবর মাস থেকে বন্ধ হওয়া এই কারখানা চালু এবং বর্তমান পরিস্থিতি সমাধানের জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করছে। একই সঙ্গে ২০২০ সালের জানুয়ারি মাস থেকে কারখানাটি চালুর করার আশা করছে কম্পানিটি।

মিরাকলের কারখানা বন্ধের পাশাপাশি চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) তথ্য প্রকাশ করেছে মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ, যাতে শেয়ারপ্রতি লোকসান ১ দশমিক ২৫ টাকা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয়েছিল শূন্য দশমিক ২৮ টাকা। গত মঙ্গলবার কারখানা বন্ধের খবর ছড়ানোর পরেই শেয়ারটিতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ দেখা যায়। ওই দিন শেয়ারটি ১৮ দশমিক ৮০ টাকা থেকে বেড়ে ২০ দশমিক ৬০ টাকায় ওঠে। এতে দর বাড়ে ১ দশমিক ৮০ টাকা বা ৯.৫৭ শতাংশ। গতকাল বুধবার সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে শেয়ারটি ১ দশমিক ৫০ টাকা বা ৭.২৮ শতাংশ বেড়ে ২২.১০ টাকায় লেনদেন হয়েছে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা