kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

প্রযুক্তি ও অর্থনৈতিক উদ্ভাবনে গুরুত্ব

মুহম্মদ শরীফ হোসেন   

৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



কৃষি থেকে শিল্প কিংবা স্বাস্থ্যসেবা সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, রোবটিকস ও থ্রি-ডি মেটাল প্রিন্টিংয়ের মতো প্রযুক্তি। বিশ্লেষকরা বলছেন, আগামীতে রোবটিকস, ব্লকচেইন ও স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তির উদ্ভাবনগুলো অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ও কর্মসংস্থানে বড় ভূমিকা রাখবে। ফলে উন্নত দেশগুলোর পাশাপাশি উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্যও এখন বড় চ্যালেঞ্জ এ প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়া। ফলে বাংলাদেশ সরকারের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১-এ টেকসই অর্থনীতি ও প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। সরকারের রূপকল্পে বলা হয়েছে, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে সরকার যে বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিচ্ছে তা হচ্ছে একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় মানবসম্পদ উন্নয়ন; সবচেয়ে অর্থবহ উপায়ে নাগরিকদের মাঝে সংযোগ প্রতিষ্ঠা; জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দেওয়া; এবং ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বেসরকারি খাত ও বাজারব্যবস্থা অধিকতর উৎপাদনশীল ও প্রতিযোগিতা সক্ষম রূপে গড়ে তোলা।

স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তির ব্যবহারে যাতে কর্মসংস্থানে নেতিবাচক প্রভাব না পড়ে সে জন্য রূপকল্পে কর্মসংস্থানের বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, ‘শ্রমঘন তৈরি পোশাক খাতে অধিকাংশ কায়িক শ্রমই নিয়ন্ত্রিত হবে অটোমেশন দ্বারা।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা