kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

২০৪১ সালে প্রয়োজন হবে ৯২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ

সজীব হোম রায়   

৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গ্রাম, শহর, শিল্প—সব ক্ষেত্রেই বিদ্যুতের প্রয়োজন। উন্নত বিশ্বে এখন বিদ্যুতের গাড়ির জনপ্রিয়তাও বাড়ছে। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার যখন ক্ষমতায় আসে তখন দেশে বিদ্যুতের তীব্র সংকট চলছিল। ২০১০ সালে দেশে ৫০ শতাংশেরও কম মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় ছিল। বর্তমানে আমরা বিদ্যুৎ উৎপাদনে স্বাবলম্বীর কাছাকাছি। সরকারের লক্ষ্য ২০২১ সালে শতভাগ বিদ্যুৎ উৎপদান সক্ষমতায় নিয়ে যাওয়া। শিল্প-কারখানাসহ মানুষের দৈনন্দিন জীবনে বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে ২০৪১ সালে দাঁড়াবে ৯২ হাজার মেগাওয়াট। এ জন্য প্রতিবেশী তিন দেশ থেকে প্রতিযোগিতামূলক দরে বিদ্যুৎ কেনাসহ উৎপাদন বাড়ানোর দিকে নজর দিচ্ছে সরকার।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১০ সালে বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল মাত্র পাঁচ হাজার মেগাওয়াট। এটি দিয়ে দেশের অর্ধেক মানুষকে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আনা গেছে। তবে মাত্র আট বছরের ব্যবধানে অর্থাৎ ২০১৮ সালে তা চার গুণ বৃদ্ধি পায়, ২০ হাজার মেগাওয়াট। ২০১০ ও ২০১৮ সালের মাঝে বার্ষিক গড় ১৩.৪ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

সরকার আশা করছে, ২০২১ সালের মধ্যে সবার ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছবে। সে লক্ষ্য নিয়েই কাজ চলছে। এ ক্ষেত্রে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের স্লোগান, ‘২০২১ এর লক্ষ্য সকলের জন্য বিদ্যুৎ’।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা