kalerkantho

সোমবার । ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ১ পোষ ১৪২৬। ১৮ রবিউস সানি                         

৯ মাসে পুঁজিবাজার

তালিকাভুক্ত ব্যাংকের মুনাফা ৪৯২৩ কোটি টাকা

রফিকুল ইসলাম   

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তালিকাভুক্ত ব্যাংকের মুনাফা ৪৯২৩ কোটি টাকা

আর্থিক সংকট কিংবা খেলাপি ঋণ বাড়লেও পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকের মুনাফা বৃদ্ধি পেয়েছে। চলতি বছর প্রথম ৯ মাসে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকের মুনাফা হয়েছে চার হাজার ৯২৩ কোটি টাকা। আগের বছর এই মুনাফা ছিল চার হাজার ২০২ কোটি টাকা। এবার মুনাফায় শীর্ষে উঠে এসেছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। ২০১৮ সালের প্রথম ৯ মাসে মুনাফায় শীর্ষে ছিল ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড। তালিকাভুক্ত ব্যাংকের সমন্বিত অনিরীক্ষিত আর্থিক হিসাব বিশ্লেষণে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

এরই মধ্যে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৩০টি ব্যাংক তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করেছে। অর্থাৎ জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকের অনিরীক্ষিত আর্থিক হিসাব প্রকাশিত হয়েছে। এতে দেখা গেছে, বেশির ভাগ ব্যাংকেরই শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে। একটি ব্যাংক লোকসান করে তলানিতে রয়েছে। পরিশোধিত মূলধনের তূলনায় ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) সবচেয়ে বেশি হয়েছে।

আর্থিক হিসাব বিশ্লেষণে দেখা যায়, এ বছর সবচেয়ে বেশি মুনাফা করেছে বেসরকারি খাতের ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। এই ব্যাংকটি ৯ মাসে কর পরিশোধের পর নিট মুনাফা করেছে ৩৫৩ কোটি ২০ লাখ টাকা। আগের বছর এই সময়ে মুনাফা করেছিল ৩৪৪ কোটি ১৯ লাখ টাকা। সে হিসাবে এ বছর ব্যাংকটির মুনাফা বেড়েছে।

২০১৮ সালের আর্থিক হিসাব থেকে জানা যায়, ওই বছর সবচেয়ে বেশি মুনাফা করে শীর্ষে ছিল ব্র্যাক ব্যাংক। এবার ব্যাংকটির মুনাফা কমে গেছে। ফলে শীর্ষ থেকে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ব্যাংকটি। এ বছর ৯ মাসে ব্র্যাক ব্যাংকের মুনাফা হয়েছে ৩১৫ কোটি ৫২ লাখ টাকা। আগের বছর ব্যাংকটির মুনাফা ছিল ৪১১ কোটি ৬৫ লাখ টাকা।

এদিকে আগের বছরের মতো এবারও লোকসানে রয়েছে আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক। এবার ব্যাংকটির লোকসান হয়েছে ৩২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। আগের বছরও লোকসানে ছিল ব্যাংকটি। এবার শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ০.৪৯ টাকা।

অনিরীক্ষিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মুনাফা ৩৩৬ কোটি টাকা, সাউথ ইস্ট ব্যাংকের ৩২৭ কোটি, পূবালী ব্যাংক ২৭৯ কোটি, সিটি ব্যাংক ২৬২ কোটি, ইস্টার্ন ব্যাংক ২২৯ কোটি, ব্যাংক এশিয়া ২২৬ কোটি, মার্কেইন্টাইল ব্যাংক ২২১ কোটি, যমুনা ব্যাংক ২১৫ কোটি, আইএফআইসি ব্যাংক ২১৩ কোটি, ইউনাইটেড কর্মাশিয়াল ব্যাংক ২০৪ কোটি, এনসিসি ব্যাংক ১৯১ কোটি, ন্যাশনাল ব্যাংক ১৮৯ কোটি, ট্রাস্ট ব্যাংক ১৬৫ কোটি, প্রিমিয়ার ব্যাংক ১৬০ কোটি, প্রাইম ব্যাংক ১৫১ কোটি, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ১৩২ কোটি, উত্তরা ব্যাংক ১২৭ কোটি, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ১২৩ কোটি, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক ১১২ কোটি, ঢাকা ব্যাংক ১০৫ কোটি, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক ৬৬ কোটি, এক্সিম ব্যাংক ৬২ কোটি, ওয়ান ব্যাংক ৫৭ কোটি, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক ৪৩ কোটি, আল-আরাফাহ্ ব্যাংক ২৫ কোটি, রূপালী ব্যাংক ১৬ কোটি ও এবি ব্যাংক ১৪ কোটি টাকা।

এদিকে শেয়ারপ্রতি আয়ের হিসাবে সবার ওপরে রয়েছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক। পরিশোধিত মূলধনের হিসাবে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ইপিএস ৬.৭৩ টাকা। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্র্যাক ব্যাংকের ইপিএস ৩.৫৫ টাকা। আর ৩.১২ টাকা ইপিএস নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে উত্তরা ব্যাংক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা