kalerkantho

সোমবার । ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ১ পোষ ১৪২৬। ১৮ রবিউস সানি                         

কর দেওয়া যাচ্ছে মোবাইলে, ঠিকানা গুগল ম্যাপে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



কর দেওয়া যাচ্ছে মোবাইলে, ঠিকানা গুগল ম্যাপে

রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে আয়কর মেলার উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

ডিজিটাল সুযোগ-সুবিধা বাড়িয়ে গতকাল থেকে শুরু হয়েছে সপ্তাহব্যাপী জাতীয় আয়কর মেলা ২০১৯। রাজধানীসহ দেশের সব বিভাগীয় শহরে সাত দিন, ৬৪ জেলা শহরে চার দিন, ৪৮ উপজেলায় দুই দিন এবং আট উপজেলায় দিনব্যাপী জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত আয়কর মেলা চলবে। গতকাল দুপুরে রাজধানীর বেইলি রোডের অফিসার্স ক্লাবে আ হ ম মুস্তাফা কামাল আয়কর মেলার উদ্বোধন করেন। এতে সভাপতিত্ব করেন এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। এবারে আয়কর মেলার স্লোগান—‘সবাই মিলে দেব কর, দেশ হবে স্বনির্ভর’।

এবার গুগল ম্যাপে সার্চ দিয়ে আয়কর মেলার ঠিকানা, অবস্থান, দূরত্ব ও সময় জানা যাবে। করদাতা অনলাইনে আয়কর বিবরণী জমা দিতে পারবেন। আয়করসংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যাবে ওয়েবসাইটে (.িধুশড়ৎসবষধ.মড়া.নফ)। এ ছাড়া মোবাইলে আয়কর পরিশোধ করা যাবে।

রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবের আয়কর মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা যায়, প্রথম দিনেই অনেক করদাতা সকাল ৮টার মধ্যে মেলা প্রাঙ্গণে উপস্থিত হন। নির্দিষ্ট বুথের সামনে লাইন করে তাঁরা মেলার কার্যক্রম শুরুর অপেক্ষায় থাকেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভিড়ও বাড়তে থাকে। মেলা প্রাঙ্গণে রয়েছে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা। অফিসার্স ক্লাব চত্বরে টানানো তাঁবুতে এবং ক্লাবের ভবনের মধ্যে সারি সারি বুথ আছে। বুথের ওপরে লেখা আছে কোন বুথে কী ধরনের সেবা দেওয়া হচ্ছে। বুথে করদাতাদের সেবা দিতে রয়েছেন রাজস্ব কর্মকর্তারা। পুরনো পদ্ধতিতে হাতে লিখে রিটার্ন পূরণ করে ই-পেমেন্টেও কর পরিশোধ করা যাবে। মেলায় প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিনা মূল্যে প্রবেশ করা যাবে।  প্রথম দিন আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ৩২৩ কোটি ১৮ লাখ ৯৩ হাজার ৮৮৫ টাকা। 

এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমি সকাল থেকেই মেলায় উপস্থিত হয়ে সার্বিক বিষয় নজরদারি করছি। করদাতারা উৎসাহ নিয়ে রিটার্ন জমা দিচ্ছেন। মেলা প্রাঙ্গণে করদাতাদের সুবিধার কথা বিবেচনায় রেখে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এখানে স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া ও খাবারের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা আছে।’

মেলায় বেসিক ব্যাংকের বুথ।  ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে রিটার্ন দাখিলের পর ব্যবসায়ী ফাহিম খান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এখানে মাত্র ৩৫ মিনিটে আমার রিটার্ন পূরণ করে, বেসিক ব্যাংকের বুথে গিয়ে কর পরিশোধ করে রিটার্ন জমা দিতে পেরেছি। আমি আমার পরিচিতজনদের এখানে আসতে বলব।’

মেলায় বেসিক ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রফিকুল আলম বলেন, ‘অফিসার্স ক্লাবে আয়োজিত সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলায় প্রতিদিন বেসিক ব্যাংকের ৩৫ জন অফিসার উপস্থিত থেকে সেবা প্রদান করবেন। আমরা ১৫টি কাউন্টার থেকে সেবা প্রদান করছি।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে করদাতাদের উদ্দেশে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘রাজস্ব প্রদান করতে গেলে কেউ যদি আপনাদের হয়রানি করে তবে তা আমাকে জানাবেন। আমি তার বিরুদ্ধে অতি দ্রুত ব্যবস্থা নেব। আমি করভীতি দূর করতে চাই। আগে যে অনিয়ম হয়েছে তা আর হবে না। দেশের উন্নয়নে সরকারকে অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করতে এলে তাকে হয়রানি করে নিরুৎসাহিত করা হবে—এটা আমি কোনোভাবে মেনে নেব না।’

তিনি আরো বলেন, ‘সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রার মান বাড়াতে হলে উন্নয়নমূলক কার্যক্রম করতে হবে, অবকাঠামো গড়ে তুলতে হবে। এ জন্য অর্থের প্রয়োজন। সরকারকে সক্ষম করতে হলে আয়কর প্রদান করতে হবে।’

মেলায় অর্থমন্ত্রী সাড়ে সাত কোটি টাকা, সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসেন ২৫ কোটি টাকা, ইসলামী ব্যাংক ১০০ কোটি টাকা, গ্রামীণফোন ১৫০ কোটি টাকার কর দিয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা