kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পিপলস লিজিং অবসায়ন নয় পুনর্গঠন চান আমানতকারীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পিপলস লিজিং অবসায়ন নয় পুনর্গঠন চান আমানতকারীরা

গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে আমানতকারীদের পক্ষ থেকে লিখিত বক্তব্য তুলে ধরা হয়

পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যানশিয়াল সার্ভিসেসকে (পিএলএফএসএল) অবসায়ন না করে ফারমার্স ব্যাংকের মতো পুনর্গঠন করে ডিসেম্বরের মধ্যেই আমানত ফেরত দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন ব্যক্তি আমানতকারীরা।

আমানতের টাকা ফেরত পেতে তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপও কামনা করেছেন। একই সঙ্গে পিপলস লিজিংয়ের সঙ্গে জড়িত দোষীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দেওয়ারও দাবি জানান তাঁরা। গতকাল শনিবার রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে ‘পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যানশিয়াল আমানতকারীদের কাউন্সিল’ ব্যানারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে আমানতকারীদের পক্ষে লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন কাউন্সিলের প্রধান সমন্বয়কারী মোহাম্মদ আতিকুর রহমান আতিক। তিনি বলেন, ‘আমাদের আকুল আবেদন—এখনই পিপলস লিজিংকে অবসায়ন না করে ব্যক্তি আমানতকারীদের আমানত দ্রুত ফিরিয়ে দিয়ে সরকার যেভাবে ফারমার্স ব্যাংকে অবসায়ন না করে পদ্মা ব্যাংক নামে পুনর্গঠন করে গ্রাহকদের আমানত ফিরিয়ে দিয়েছে, ঠিক তেমনি পিপলস লিজিংকে অবসায়ন না করে পুনর্গঠন করে নতুন নামে চালু এবং গ্রাহকদের আমানত ফেরত প্রদান করে সরকারের ভাবমূর্তিকে উজ্জ্বল করবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা প্রায় ছয় হাজার ব্যক্তি আমানতকারী সরল বিশ্বাসে আমাদের সঞ্চিত ও কষ্টার্জিত অর্থ আমানত হিসেবে পিপলস লিজিংয়ে জমা রেখেছিলাম। কিন্তু বর্তমানে আমরা পিপলস লিজিংয়ের ক্ষুদ্র আমানতকারীরা কষ্টার্জিত অর্থ ফেরত পাচ্ছি না। ফলে আমরা চরম অসহায় অবস্থায় দুঃচিন্তায় দিন যাপন করছি। কোথায় গেলে এই টাকা ফেরত পাব তার কোনো নিশ্চয়তাও পাচ্ছি না। আমাদের হাজারও আমানতকারী ও তাঁদের লক্ষাধিক পরিবারের সদস্য এক অনিশ্চিত জীবন যাপন করছে। এই টাকা থেকে অনেক অবসরপ্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের সংসারের ব্যয় নির্বাহ হতো, ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া চলত, চিকিৎসা ব্যয় হতো। আজ তা সব বন্ধ। এরই মধ্যে একজন আমানতকারী টাকা ফেরত পাওয়ার অনিশ্চয়তার কারণে হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুবরণ করেছেন। একজন ক্যান্সার আক্রান্ত আমানতকারী অর্থাভাবে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা করাতে পারছেন না। প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে আতিকুর বলেন, আমরা পিপলস লিজিংয়ের প্রতারণার শিকার। আমরা বাঁচতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংক পিপলস লিজিংকে সঠিক নজরদারি না করায় একটি অসাধু চক্র, সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার মাধ্যমে আমাদের সর্বস্বান্ত করে দিয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা