kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

খেলাপি ঋণ অবলোপন নীতিমালা শিথিলে নমনীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক

দেশের চার ভাগের এক ভাগ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খেলাপি ঋণ অবলোপন নীতিমালা শিথিলে নমনীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক

খেলাপি ঋণ মন্দমানে পরিণত হলেই তা সঙ্গে সঙ্গে অবলোপন করার যে প্রস্তাব ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা করেছেন তা বিবেচনা করার আশ্বাস দিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

গতকাল বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে বাণিজ্যিক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) প্রতিনিধিদের বৈঠকে এমন আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

বৈঠকে উপস্থিত বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে এবিবির কোনো প্রতিনিধি বৈঠক নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেননি। বৈঠকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপদেষ্টা এস কে সুর চৌধুরী, ডেপুটি গভর্নর এস এম মনিরুজ্জামান ও আহমেদ জামাল, এবিবি প্রেসিডেন্ট সৈয়দ মাহবুবুর রহমান, ইস্টার্ন ব্যাংকের এমডি আলী রেজা ইফতেখার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, বৈঠকে অন্যতম আলোচ্য বিষয় ছিল খেলাপি ঋণের অবলোপন নীতিমালা শিথিল করা। বর্তমান নীতিমালার আলোকে খেলাপি ঋণের মেয়াদ কমপক্ষে তিন বছর না হলে তা অবলোপন করা যায় না। এবিবি সময়সীমা উঠিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব করে। এতে খেলাপি ঋণ কমানো সম্ভব হবে। তাদের প্রস্তাবটি ইতিবাচকভাবে বিবেচনা করা হবে বলে গভর্নর আশ্বস্ত করেছেন।

এ ছাড়া বৈঠকে ব্যাংকের সিকিউরিটি সার্ভিসেস, অবশোর ব্যাংকিং নীতিমালা সংশোধন, স্ট্যাম্প ডিউটি, ব্যাংকে শ্রম আইন প্রয়োগ, ইন্টারনাল ক্রেটিড রিস্ক রেটিং (আইসিআরআর) গাইডলাইন্স সংশোধন এবং পরিবর্তনের জন্য তাঁদের দাবি তুলে ধরেন।

এ ছাড়া গৃহঋণের সীমা বাড়ানো এবং ঋণখেলাপি ও প্রভিশনিং নীতিমালা পরিবর্তনের দাবিও জানানো হয় এবিবির পক্ষ থেকে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষ সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার কমানো এবং খেলাপি ঋণ আদায় বৃদ্ধির নির্দেশনা দেওয়া হয় বলে জানা গেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা