kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ব্যাংকনির্ভরতা কমাতে বিকল্প অর্থায়নে সরকার

রফিকুল ইসলাম   

২৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



ব্যাংকনির্ভরতা কমাতে বিকল্প অর্থায়নে সরকার

সরকারের টেকসই লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) পূরণে যুবসমাজের উদ্ভাবনী অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে গতিশীলতা আনতে বিকল্প অর্থায়নের পথ খুঁজছে সরকার। তরুণদের উদ্যোগ ও উদ্ভাবন বাস্তবায়নে ঋণের ক্ষেত্রে ব্যাংকনির্ভরতা কমিয়ে বিশেষায়িত ফান্ড ও ক্যাপিটাল মার্কেট ইনস্ট্রুমেন্ট সৃষ্টিতে উদ্যোগ নেওয়া হবে। নীতিমালা তৈরি করে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, প্রাইভেট ইক্যুইটি ও সহনীয় অর্থায়ন (ফ্লেক্সিবল ফাইন্যান্স) বিকল্প ফান্ড তৈরি করবে, যাতে ছোট ছোট উদ্যোক্তারা ব্যাংকঋণে নির্ভর না করে এই ফান্ড থেকে দীর্ঘ মেয়াদে ঋণ নিতে পারবে।

অলটারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ভেহিকল ইকো-সিস্টেম নীতিমালা প্রণয়নে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি একটি কমিটি গঠন করে। সংশ্লিষ্টদের মতামত নেওয়ার পর একটি পলিসি তৈরি করেছে, এ ক্ষেত্রে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ও বিকল্প বিনিয়োগ সুষ্ঠুভাবে কার্যকর করতে ১৩টি বাধা চিহ্নিত করেছে এই কমিটি। আর এসব বাধা আইনগত ও নীতিমালা সংস্কারে বাংলাদেশ ব্যাংক, পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও বীমা নিয়ন্ত্রকের মতামত চাওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দীর্ঘ মেয়াদে ঋণের জন্য ব্যাংকনির্ভরতা বিকল্প বিনিয়োগ ফান্ড খুবই জরুরি। পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে শুরু করে অনেক উন্নত দেশে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ও অলটারনেটিভ ফান্ড চালু রয়েছে। তবে বিশেষায়িত ও ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় বিনিয়োগকারীকে উৎসাহী করতে সঠিক পলিসি তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। বিকল্প অর্থায়নের সুযোগ সৃষ্টি হলে কর্মসংস্থানের পাশাপাশি তরুণ উদ্যোক্তাদের অর্থের জোগান নিশ্চিত হবে বলে ধারণা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (অলটারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট) রুলস-২০১৫ অনুযায়ী, বিকল্প বিনিয়োগ ফান্ড ট্রাস্ট আকারে প্রতিষ্ঠিত যেকোনো ফান্ডে বিনিয়োগের জন্য নির্দিষ্ট নীতিমালার আলোকে বেসরকারি পরিচালিত যোগ্য বা নির্ধারিত বিনিয়োগকারীর মাধ্যমে গঠিত হয়। নির্দিষ্ট মেয়াদের এই ফান্ড শুধু প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে মূলধন সংগ্রহ করা হয়।

সূত্র জানায়, ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ও বিকল্প বিনিয়োগ ফান্ডের অন্তরায় হচ্ছে ট্রাস্ট চুক্তিপত্র নিবন্ধনের সময় ২ শতাংশ স্ট্যাম্প ডিউটি। ট্রাস্টের আওতায় গঠিত ফান্ডে ২ শতাংশ ফি দিতে হয়। তবে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ক্ষেত্রে এই ফি মওকুফ করেছে সরকার। বিকল্প বিনিয়োগ চ্যানেলে বিনিয়োগে স্ট্যাম্প ডিউটি অব্যাহতি চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে এই বিনিয়োগ চ্যানেলে বিনিয়োগ বাধ্যবাধকতা, বিনিয়োগে বীমা কম্পানিকে বাধ্য করা, ভেঞ্চার ক্যাপিটালে মেয়াদ ১০ বছর করা ও আয়কর অব্যাহতি দেওয়ার পরামর্শ চেয়েছে কমিটি।

কমিটি সূত্রে জানা যায়, নন-রেসিডেন্ট ইনভেস্টরস টাকা অ্যাকাউন্ট (নিটা) হিসেবে অনেক সময় টাকা থাকে না বিধায় সব ব্যাংক এই হিসাব খুলতে চায় না। বিদেশি বিনিয়োগকে উৎসাহী করতে এই নিটা হিসাব খুলতে সব ব্যাংককে আগ্রহী করা, বিকল্প বিনিয়োগ তহবিলের ক্ষুদ্র আয়ের ওপর আরোপিত ফি অব্যাহতি ও ব্যক্তি খাতকে আগ্রহী করতে ব্যক্তি কর রেয়াত দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

বিকল্প বিনিয়োগের ডিভিডেন্ড ও ক্যাপিটাল গেইন থেকে কর পরিহার, পুঁজিবাজারে মূলধন উত্তোলনে আইপিওতে ফান্ড ম্যানেজারের আইপিও কোটা বাড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে বিকল্প বিনিয়োগ ফান্ডকে উৎসাহী করতে অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড রুলসের বিভিন্ন ধারা সংশোধন, সংযোজন ও শিথিল করতে ২৪টি বিষয় সুপারিশ করেছে কমিটি। আর এ বিষয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন, বাংলাদেশ ব্যাংক, এনবিআরের মতামত চেয়েছে।

এই সুপারিশে বলা হয়েছে, তিন বছর অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ফান্ড ম্যানেজারকে ফান্ড দেখভালে অগ্রাধিকার, তফসিলি ব্যাংক থেকে বিকল্প বিনিয়োগ ফান্ডে সমুদয় পরিমাণ ২০০ কোটি টাকা সংক্রান্ত বিধি-নিষেধের শিথিলতা বা অব্যাহতি প্রদান, ফান্ড ম্যানেজারের ফান্ডের ২ শতাংশ বিনিয়োগে শিথিলতা, ব্যক্তি পর্যায়ের বিনিয়োগকারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে ন্যূনতম চাঁদার হার ৫০ লাখ থেকে কমিয়ে ১০ লাখ টাকা করার কথা বলা হয়েছে।

সুপারিশে বলা হয়, তারল্য প্রবাহ নিশ্চিত করতে বিধি-নিষেধে শিথিলতা প্রদান, ফান্ড কর্তৃক একক কম্পানিকে বর্তমান বিনিয়োগের সর্বোচ্চ সীমাসংক্রান্ত বিধি-নিষেধের ক্ষেত্রে শিথিলতা বা অব্যাহতি, বিনিয়োগকারীর বিনিয়োগের ওপর লক-ইন ওই ফান্ডেও মেয়াদকালের ৫০ শতাংশ নির্ধারণ করা, বিকল্প বিনিয়োগ ব্যবস্থাপনায় ফান্ড ম্যানেজার ও অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কম্পানিকে ১০ বছর কর অবকাশ প্রদান ও আয়কর, মূল্য সংযোজন কর থেকে অব্যাহতি প্রদান, স্বল্প সময়ে অর্থ আদান-প্রদানের নিটা হিসেবে সংস্কার আনা, ঝুঁকি হ্রাসে বিকল্প বিনিয়োগের জন্য বিশেষ প্রিমিয়ামে বীমা প্রচলন করা, ফান্ড ব্যবস্থাপকের বার্ষিক ফি, আবেদন ফি ও নিবন্ধন ফি সহনীয় মাত্রায় নির্ধারণ করার সুপারিশ করা হয়।

ভেঞ্চার ক্যাপিটাল হবে দীর্ঘ মেয়াদি ঋণের অন্যতম উৎস

ওয়ালী-উল মারুফ মতিন, এমডি, মসলিন ক্যাপিটাল

ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ও বিকল্প বিনিয়োগ মাধ্যমে বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। এই খাতে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি কিন্তু পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে এ ব্যবস্থা চালু হয়েছে সত্তরের দশকে। যুক্তরাষ্ট্রেও আছে। দেশের জিডিপিকে এগিয়ে নিতে ব্যাংকনির্ভরতা কমাতে বিকল্প বিনিয়োগ মাধ্যমের কোনো বিকল্প নেই। বিকল্প বিনিয়োগ চ্যানেল শুরু হলে আগামী ১০ বছরের পর ছোট ঋণের জন্য কেউ আর ব্যাংকে যাবে না। বড় ঋণের উদ্যোক্তারা যেতে পারে। তবে ছোটদের জন্য ভেঞ্চারই যথেষ্ট হবে। আর এই প্রক্রিয়া প্রথাগত ব্যাংকিং খাতের চেয়ে সহজ হবে। ব্যাংকের কাজ দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দেওয়া নয়। ভেঞ্চার ক্যাপিটাল হবে দীর্ঘ মেয়াদের অন্যতম উৎস।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা