kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ঝুঁকিপূর্ণ করপোরেট ঋণ বিশ্বে আরেকটি মন্দা ডেকে আনবে

বড় ৮ দেশের হাতে ১৯ ট্রিলিয়ন ডলার ঝুঁকিপূর্ণ করপোরেট ঋণ

বাণিজ্য ডেস্ক   

১৮ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঝুঁকিপূর্ণ করপোরেট ঋণ বিশ্বে আরেকটি মন্দা ডেকে আনবে

বাণিজ্যযুদ্ধে অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার মাঝে সুদের হার কম থাকায় বিপুল অঙ্কের ঋণ গ্রহণে উৎসাহিত হয়েছে বৈশ্বিক কম্পানিগুলো। এতে বড় আট দেশের হাতেই ঝুঁকিপূর্ণ করপোরেট ঋণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯ ট্রিলিয়ন ডলার। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) প্রতিবেদনে এটিকে ‘টাইম বোমা’ উল্লেখ করে বলা হয়, এর বিস্ফোরণে আরেকটি বৈশ্বিক মন্দার উদ্ভব ঘটতে পারে।

ওয়াশিংটন ডিসিতে বিশ্বব্যাংক এবং আইএমএফের বার্ষিক বৈঠক ঘিরে গত বুধবার গ্লোবাল ফিন্যানশিয়াল স্ট্যাবিলিটি রিপোর্টটি প্রকাশ করা হয়। বিশ্ব অর্থবাজার নিয়ে এ প্রতিবেদনে বলা হয়, বৈশ্বিক করপোরেট ঋণের প্রায় ৪০ শতাংশ এ আটটি উন্নত দেশের হাতে। এ দেশগুলো হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, জার্মানি, ব্রিটেন, ফ্রান্স, ইতালি ও স্পেন।

আইএমএফ উল্লেখ করে, উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো প্রণোদনা দেয়ায় এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। আর তা হচ্ছে বেশি পরিমাণে ঋণ গ্রহণ। যদিও অনেকের এটি পরিশোধের সক্ষমতা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। এমনকি বিপুল অঙ্কের ঋণ গ্রহণ করে প্রতিষ্ঠানগুলোর সেবা সক্ষমতাও কমছে। প্রতিবেদনের দুই রচয়িতা টোবিয়াস অ্যাডরিয়ান ও ফ্যাবিও নাতালুচি বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর শিথিল মুদ্রানীতির ফলে সাময়িকভাবে অর্থবাজার চাঙ্গা হয়েছে। এতে বিনিয়োগকারীরা বেশি পরিমাণে সুযোগ গ্রহণ করেছে। ফলে মধ্যমেয়াদে অর্থনৈতিক ঝুঁকি বাড়ছে, প্রবৃদ্ধি মন্থর হচ্ছে।

আইএমএফ মনিটারি ও ক্যাপিটাল মার্কেটের প্রধান আন্না ইলিনা সতর্ক করে দিয়ে বলেন, এ আট দেশের মোট করপোরেট ঋণের পরিমাণ বর্তমানে প্রায় ৫১ ট্রিলিয়ন ডলার। যেখানে ২০০৯ সালে ছিল ৩৪ ট্রিলিয়ন ডলার।

তাঁরা বলেন, ‘আমরা সংযমী ভাষায় বলছি, যেসব প্রতিষ্ঠান করপোরেট ঋণ নেওয়ার পর তাদের আয় দিয়ে সুদের ব্যয় বহন করতে সক্ষম নয়, সেসব প্রতিষ্ঠানের ঋণকে আমরা ঝুঁকিপূর্ণ বলি।’ এএফপি, গার্ডিয়ান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা