kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশে চাহিদার অতিরিক্ত উৎপাদন ও মাংস রপ্তানি হওয়ার পরও হিমায়িত মাংস আমদানির প্রক্রিয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন মাংস উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা। তাঁদের দাবি, হিমায়িত মাংস আমদানি হলে দেশি খামারি ও ক্ষুদ্র উৎপাদনকারীরা ক্ষতির মুখে পড়বেন। এ কারণে বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানির প্রক্রিয়া বন্ধ করার জন্য দাবি জানানো হয়েছে।

গতকাল সোমবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে আয়োজিত ‘বিদেশ থেকে হিমায়িত গরুর মাংস আমদানি প্রক্রিয়া বন্ধ প্রসঙ্গে’ এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়েছে। এনিম্যাল হেলথ কম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আহকাব), বাংলাদেশ এনিম্যাল হাজবেন্ড্রি অ্যাসোসিয়েশন, বেঙ্গল মিট, বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিডিএফএ), বাংলাদেশ ভেটেরিনারি অ্যাসোসিয়েশন (বিভিএ), অ্যাগ্রো ফিড ইনগ্রেডিয়েন্ট ইম্পোর্টার্স ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশনসহ বেশ কয়েকটি সংগঠন মিলে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এতে আহকাবের প্রেসিডেন্ট ডা. এম নজরুল ইসলাম মূল বক্তব্য পড়ে শোনান। বাংলাদেশের মাংস উৎপাদনের ওপর একটি উপস্থাপনা তুলে ধরেন বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শরীফ আহমেদ চৌধুরী।

এম নজরুল ইসলাম বলেন, ‘জনপ্রতি ১২০ গ্রাম করে মাংসের মাথাপিছু চাহিদা হিসাবে বার্ষিক চাহিদা ৭২ দশমিক ৯৭ লাখ মেট্রিক টন। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে গবাদি পশু ও হাঁস-মুরগি থেকে মোট মাংস উৎপাদিত হয়েছে ৭৫ দশমিক ১৪ লাখ টন। চাহিদার চেয়ে বেশি মাংস উৎপাদিত হওয়ার পরও বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানির প্রক্রিয়ার কারণে আমরা উদ্বিগ্ন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা