kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

দেশে গাড়ি সংযোজন করতে চায় বিএমডাব্লিউ ও মার্সিডিস

জিএসপি সুবিধা বহাল রাখতে সহায়তা করবে জার্মানি : অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশে গাড়ি সংযোজন করতে চায় বিএমডাব্লিউ ও মার্সিডিস

বিলাসবহুল বিএমডাব্লিউ ও মার্সিডিস বেঞ্জ গাড়ি বাংলাদেশে তৈরির প্রস্তাব দিয়েছে জার্মান। এ গাড়ি দুটির যন্ত্রাংশ বাংলাদেশে সংযোজন করা হবে। কিছু যন্ত্রাংশ নিয়ে আসা হবে বিদেশ থেকে।

গতকাল সোমবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরে জার্মানির একটি প্রতিনিধিদল অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে বৈঠক করে এমন প্রস্তাব দেয়। এমন সময় দেশটির ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলটি জিএসপি সুবিধা যেন বাতিল হয়ে না যায় সে বিষয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে বলে আশ্বাস দিয়েছে। বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, তারা বিএমডাব্লিউ অথবা মার্সিডিস বাংলাদেশে অ্যাসেম্বল (সংযোজন) করতে চায়। থাইল্যান্ডে যেভাবে অ্যাসেম্বল করে, সেভাবে এখানে করবে। অর্থাৎ তারা বিএমডাব্লিউ ও মার্সিডিস বেঞ্জের কিছু পার্টস তৈরি করবে এবং কিছু পার্টস বিদেশ থেকে আনবে। পরে এটা এখানে অ্যাসেম্বল করবে। এটি একটি খুবই উত্তম প্রস্তাব। তাহলে আর আমাদের ব্যয়বহুল এসব গাড়ি আমদানি করতে হবে না।

তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেও দেখা করবে প্রতিনিধিদলটি। তারা প্রধানমন্ত্রীকে আগামী মার্চ মাসে দেশটিতে সফরে যাওয়ার প্রস্তাব করবে। সেখানে বিষয়টি চূড়ান্ত হতে পারে।

জার্মানির বাজারে বাংলাদেশের পণ্যের অবাধ বাজার-সুবিধার (জিএসপি) বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা তাদের বলেছি, বাংলাদেশের জিএসপি যেন বন্ধ হয়ে না যায়। তারা এ বিষয়ে সর্বাত্মকভাবে সাহায্য করবে বলে জানিয়েছে।’

জার্মানি পাটশিল্পে আগ্রহী জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, তারা বড় আকারে আমাদের পাটশিল্পকে ব্যবহার করতে চায়। মার্সিডিসের ভেতরে ব্যবহৃত অনেক কিছুই পাটের পণ্য। জার্মানির যত গাড়ি আছে, সব গাড়ির ভেতরে পাটের অনেক জিনিস আছে। পাটশিল্প ম্যানেজ করা আমাদের জন্য অত্যন্ত কঠিন ছিল। তাই এটা ভালো প্রস্তাব। আমরা বলেছি, আপনারা আসেন এবং ব্যবসা করেন।

অ্যাসোসিয়েশন অব জার্মান চেম্বারস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিকে সঙ্গে নিয়ে জার্মান এশিয়া-প্যাসিফিক বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন জার্মান ব্যবসায়ীদের এ সফরের আয়োজন করেছে। এই দলে বস্ত্র, আসবাব, জাহাজ থেকে শুরু করে পরিবেশ-প্রযুক্তি, ব্যাংকিং ও পর্যটন খাতের প্রতিনিধিরা রয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা