kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

আইসিসিবিতে শুরু টেক্সটেক বাংলাদেশ

পোশাক খাতের প্রযুক্তি ও পণ্যের সমাহার এক ছাদের নিচে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পোশাক খাতের প্রযুক্তি ও পণ্যের সমাহার এক ছাদের নিচে

আইসিসিবিতে টেক্সটেক প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। ছবি : কালের কণ্ঠ

পুনচাংক কম্পানি লিমিটেড নামের চীনের একটি প্রতিষ্ঠান সুতা ও কাপড় উৎপাদন করে। বাংলাদেশে নতুন ক্রেতাপ্রতিষ্ঠান খুঁজতে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) শুরু হওয়া ‘২০তম টেক্সটেক বাংলাদেশ-২০১৯’ প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রতিনিধি সেচাং মিউনিং কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বাংলাদেশে আমাদের অনেক ক্রেতা আছে। নতুন ক্রেতার সন্ধানে টেক্সটাইল ও গার্মেন্ট শিল্পের বৃহত্তম আন্তর্জাতিক এ প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছি।’

তৈরি পোশাক শিল্পে রাসায়নিক সরবরাহকারী তাইওয়ানের আরেক প্রতিষ্ঠান জিসান লিমিটেডও ক্রেতা খুঁজতে এ প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছে জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটির প্রতিনিধি নিংফা জু কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘গত তিন বছর থেকে এ প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করছি। এখান থেকে বিগত দিনে নতুন ক্রেতা পেয়েছি। প্রতিবছরই মেলায় অংশগ্রহকারীর সংখ্যা বড়ছে।’  

আন্তর্জাতিক আয়োজক সংস্থা সেমস গ্লোবালের আয়োজনে গতকাল বুধবার শুরু হওয়া চার দিনের টেক্সটেক প্রদর্শনীর সঙ্গেই হচ্ছে ‘১৬তম ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইয়ার্ন অ্যান্ড ফ্যাব্রিক শো-২০১৯’ এবং ‘৩৮তম ডাই-ক্যাম বাংলাদেশ এক্সপো-২০১৯’।   

প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো টেক্সটাইল ও গার্মেন্টশিল্পের আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি, বিভিন্ন ধরনের সুতা, ডেনিম, নিটেড ফ্যাব্রিকস, ফ্লিস, ইয়ার্ন অ্যান্ড ফাইবার, আর্টিফিশিয়াল লেদার, এমব্রয়ডারি, বাটন, জিপার, লিনেন ব্লেন্ডসহ অ্যাপারেল পণ্য প্রদর্শন করছে। গতকাল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন, বিকেএমইএর ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মনসুর আহমেদ এবং সেমস গ্লোবালের প্রেসিডেন্ট মেহেরুন এন ইসলাম বক্তব্য দেন।

সেমস গ্লোবাল জানায়, এ প্রদর্শনী বাংলাদেশের টেক্সটাইল ও তৈরি পোশাক শিল্প খাতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারে উদ্যোক্তাদের সচেতন করবে। ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রদর্শনী প্রতিদিন সকাল ১০টা ৩০ মিনিট থেকে সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। এতে প্রবেশমূল্য দিতে হবে না।

সরেজমিনে প্রদর্শনীগুলো ঘুরে দেখা যায়, প্রদর্শনীতে বাংলাদেশ, চীন, ভারত, জার্মানি, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, তাইওয়ান, জাপান, তুরস্ক, ইতালিসহ মোট ২৫টি দেশ থেকে এক হাজার ২৫০ প্রতিষ্ঠানের এক হাজার ৫০০ স্টল আছে। এখানে বিভিন্ন হলে এ প্রদর্শনী চলছে। অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রয়েছে। সরকারের দৃঢ় অবস্থানের ফলে শিল্প খাতসহ সামগ্রিক অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব হচ্ছে। ২০২১ সালের মধ্যে শিল্পসমৃদ্ধ মধ্যম আয়ের এবং ২০৪১ সাল নাগাদ উন্নত ও সমৃদ্ধ রাষ্ট্র বিনির্মাণে তৈরি পোশাক শিল্প খাতের সঙ্গে সম্পৃক্ত সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার পরামর্শ দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা