kalerkantho

সোমবার । ১৪ অক্টোবর ২০১৯। ২৯ আশ্বিন ১৪২৬। ১৪ সফর ১৪৪১       

ইউয়ানের দাম কমে এক দশকে সর্বনিম্ন

কারসাজির অভিযোগ যুক্তরাষ্ট্রের

বাণিজ্য ডেস্ক   

৭ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চীনা মুদ্রা ইউয়ানের দাম কমে এক দশকে সর্বনিম্ন হয়েছে। গত সোমবার প্রতি ডলারের বিপরীতে চীনা মুদ্রা সাত ইউয়ান অতিক্রম করে, যা ২০০৮ সালের পর থেকে সর্বনিম্ন। যদিও গতকাল মঙ্গলবার আর দরপতন ঘটেনি। এর প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র সরকার অভিযোগ তুলেছে চীন মুদ্রার কারসাজি করছে।

ক্ষমতায় আসার পর থেকেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিযোগ করে আসছেন চীন পণ্য রপ্তানি বাড়াতে মুদ্রার কারসাজি করছে। বাজারসংশ্লিষ্টরা জানান, মুদ্রা ইউয়ান দুর্বল হলে প্রতিযোগিতামূলক বাজারে চীনের পণ্য আরো সস্তা হয়।

এর জবাবে পিপলস ব্যাংক অব চায়না (পিবিওসি) বলেছে, ইউয়ানের পতনের কারণ একপক্ষীয় বাণিজ্য সুরক্ষানীতি ও চীনের ওপর শুল্ক আরোপ।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, চীনের ৩০০ বিলিয়ন ডলার পণ্যে তিনি শুল্ক আরোপ করবেন। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি হওয়া চীনের সব পণ্যই শুল্কের আওতায় পড়ে যাবে।

যুক্তরাষ্ট্র দাবি অনুযায়ী চীনা পণ্যের ওপর শুল্ক আরোপের কারণেই পণ্যের দাম কমাতে তারা মুদ্রার অবমূল্যায়ন ঘটাচ্ছে। যদিও এর ফলে চীনে আমদানি হওয়া সব পণ্যের দাম বেড়ে যাবে। এতে মূল্যস্ফীতি বাড়বে এবং দেশটির অর্থনীতি আরো দুর্বল হয়ে যাবে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ইউয়ানের দরপতন আরো ঘটবে। ক্যাপিটাল ইকোনমিকসের মতে, বছর শেষে ডলারের বিপরীতে ৭.৩০ ইউয়ান হবে। যেখানে আগের পূর্বাভাসে সংস্থা বলেছিল ৬.৯০ ইউয়ান থাকবে। বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা