kalerkantho

বুধবার । ২৬ জুন ২০১৯। ১২ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

বিএসইসির সঙ্গে বৈঠকে অর্থমন্ত্রী

সঠিক অবস্থানে পুঁজিবাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সঠিক অবস্থানে পুঁজিবাজার

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল

বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের বার্ষিক কর্মসূচি শেষে দেশে ফিরেই পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গতকাল সোমবার কমিশনের সভাকক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

পুঁজিবাজারে সাম্প্রতিক পরিস্থিতি ও করণীয় বিষয়ে অর্থমন্ত্রীকে অবহিত করেন কমিশনের চেয়ারম্যান এম খায়রুল হোসেন। পুঁজিবাজার পরিস্থিতি উত্তরণে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) দেওয়ার প্রস্তাবের বিষয়েও আলোচনা হয়। এ সময় আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিক আসাদুল ইসলাম, কমিশনার ড. স্বপন কুমার বালা, হেলাল উদ্দিন নিজামী ও কামালুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

পুঁজিবাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, মন্দ আইপি, বোনাস লভ্যাংশ ও ব্যাংক খাতে অস্থিরতায় তারল্য সংকট ছাড়াও একাধিক কারণে পুঁজিবাজার প্রভাবিত হয়েছে। পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারীদের জন্য টিআইএন বাধ্যতামূলক করার ভুল তথ্য ও গ্রামীণফোনের ওপর বাড়তি রাজস্ব চাপও পুঁজিবাজার প্রভাবিত করতে ভূমিকা রেখেছে। বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল বলেন, বিশ্বের সব দেশের পুঁজিবাজারেই সূচকের ওঠা-নামা হয়। আমেরিকা, জাপান ও ভারতের মতো দেশেও উত্থান-পতন হয়েছে। বাংলাদেশেও ব্যতিক্রম নয়। পুঁজিবাজার সঠিক অবস্থানেই রয়েছে, এতে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। পুঁজিবাজার দেশের অর্থনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। অর্থনীতি ভালো হলে পুঁজিবাজারও ভালো হবে। উত্থান-পতন থাকবেই।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমানে বাজারের অবস্থা খারাপ অবস্থানে আছে বলে মনে করি না। সূচক চার হাজার ৫০০ পয়েন্ট ছিল, সেখান থেকে পাঁচ হাজার ৯০০ পয়েন্টে গিয়েছিল। এখন পাঁচ হাজার ৩০০ পয়েন্টে নেমেছে। এখানে সূচক ফল্টের কিছু নেই। এটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।’ তিনি বলেন, মূল্যসূচক পাঁচ হাজার ৯০০ থেকে পাঁচ হাজার ৩০০ যদি সূচক হয়, এখানে এমন কী হয়ে গেল! জাপানে সূচক ৩৯ হাজার থেকে সাত হাজার, আমেরিকায় ১৭ হাজার থেকে সাত হাজার ও ভারতে ২১ হাজার থেকে সাত হাজারে এসেছিল। তবে ভারতে সেই সূচক এখন ২২ থেকে ২৩ হাজার উঠে গেছে। সব জায়গাতেই এমন হয়।’

মন্তব্য