kalerkantho

মঙ্গলবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১২ রবিউস সানি     

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নতুন প্রকল্প

রিংরোডে যুক্ত হতে বেপজা-সিডিএ জট খুলেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অবশেষে জট খুলেছে চট্টগ্রাম সিটি আউটার রিংরোডের সঙ্গে চট্টগ্রাম ইপিজেডের সংযুক্তকরণ প্রকল্পটির। বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষের অনুরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নতুন প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে রিংরোডের সঙ্গে সিইপিজেডকে সংযুক্ত করার নির্দেশনা দিয়েছেন। ফলে রিংরোডের সঙ্গে সংযোগ সড়কে আর কোনো বাধা থাকল না।

বেপজা সূত্র জানায়, গত ২১ জানুয়ারি বেপজার একটি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক-১ মো. জিয়াউল হক স্বাক্ষরিত অনুশাসনে প্রধানমন্ত্রী নতুন প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) বাস্তবায়িত হওয়া চট্টগ্রাম সিটি আউটার রিংরোডের সঙ্গে চট্টগ্রাম ইপিজেডের সংযোগ সড়কটি বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা দেন। এই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার সিডিএ চেয়ারম্যান আব্দুচ ছালামের সঙ্গে দেখা করেন বেপজার প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল কবির এবং চট্টগ্রাম ইপিজেডের মহাব্যবস্থাপক মো. খুরশিদ আলম।

সভা শেষে বেপজার প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল কবির কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা সিডিএ চেয়ারম্যানকে প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসনের বিষয়ে বিস্তারিত ব্রিফিং দিয়েছি। তিনি নিজেও অনুশাসন পাওয়ার ব্যাপারে আমাদের নিশ্চিত করেছেন। এরই মধ্যে দ্রুততম সময়ের কাজ শুরুর ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে বলে তিনি আমাদের আশ্বস্ত করেছেন।’

প্রসঙ্গত, নির্মাণ খরচ নিয়ে সিডিএ-বেপজা সমঝোতা না হওয়ায় প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থেকে সাগরিকা পর্যন্ত দৃষ্টিনন্দন আউটার রিংরোড প্রকল্পটি প্রায় শেষ পর্যায়ে এসে গেলেও সিইপিজেডের সঙ্গে সংযোগ সড়ক নির্মাণ শুরু করা যায়নি। এ নিয়ে গত ১৪ মার্চ দৈনিক কালের কণ্ঠে ‘নির্মাণ ব্যয় নিয়ে বেপজা-সিডিএ সমঝোতা হয়নি’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

তবে এই প্রকল্পের কাজ শুরু হতে অনেক সময় লেগে যাবে বলে জানালেন সিডিএর নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রকৌশলী। তিনি জানান, যেহেতু রিংরোডের কাজটির ডিপিপি একবার রিভাইজড হয়ে গেছে। সেহেতু আর নতুন করে রিভাইজড হওয়ার সুযোগ নেই। নতুন প্রকল্পে রিংরোডের আরো কিছু অসমাপ্ত এবং নতুন সংযোজিত কাজ যুক্ত করা হবে। এর মধ্যে রিংরোড থেকে চৌচালা বিচ হয়ে শারীরিক শিক্ষা কলেজের পাশ দিয়ে বড়পুল পর্যন্ত ৬০ ফুট রাস্তা এবং সাগরিকা থেকে ফৌজদারহাট পর্যন্ত সড়কটিকে বর্ধিত করার কাজটিও নতুন প্রকল্পে যুক্ত করা হতে পারে। সে ক্ষেত্রে একনেক হয়ে প্রকল্পটি পাস হয়ে আসতেও বছর দেড়েক সময় লাগবে।

বেপজা সূত্র জানায়, রিংরোডে সংযুক্ত হতে বেপজার অর্থায়নে সিডিএ এরই মধ্যে যে নকশা করেছে নতুন প্রকল্পে সেটি আর থাকছে না। বরং নতুন প্রকল্পে সেটি হবে আরো দৃষ্টিনন্দন ও কার্যকরী। আগের নকশায় মূলত দুটি র‌্যাম্প দিয়ে রিংরোডে ওঠার রাস্তা তৈরি করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু নতুন প্রকল্পের নকশায় লুপ পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে বলে জানান বেপজা প্রধান প্রকৌশলী। এর ফলে সংযোগ সড়কটি এখন আরো কার্যকর হবে।

সিইপিজেড সূত্র জানায়, সংযোগ সড়ক হলে এই রিংরোড দিয়েই রপ্তানিমুখী কারখানাগুলোর আমদানি-রপ্তানি পণ্য ইপিজেডে যাতায়াত করবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা