kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলার উদ্বোধনীতে প্রতিমন্ত্রী

জেলাভিত্তিক পর্যটনে জোর দেওয়া হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জেলাভিত্তিক পর্যটনে জোর দেওয়া হবে

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী গতকাল সোনারগাঁও হোটেলে ঢাকা ট্রাভেল মার্টের উদ্বোধন করেন

জেলাভিত্তিক পর্যটনে জোর দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। তিনি বলেছেন, দেশের ৬৪ জেলায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে পর্যটনের বহু নিদর্শন। এসব নিদর্শনকে অভ্যন্তরীণ ও বিদেশি পর্যটকের কাছে তুলে ধরতে এরই মধ্যে জেলা ব্র্যান্ডিংয়ের কাজ শুরু হয়েছে। এছাড়া প্রতি জেলায় ট্যুরিজম সার্কিট গড়ে তোলা হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে নভো এয়ার ঢাকা ট্রাভেল মার্ট-২০১৯-এর উদ্বোধনীতে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। ভ্রমণবিষয়ক পাক্ষিক দি বাংলাদেশ মনিটর ষোড়শবারের মতো এ মেলার আয়োজন করছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ মনিটরের প্রধান সম্পাদক রকিব সিদ্দিকী, নেপালের রাষ্ট্রদূত ধান বাহাদুর অলি, পর্যটন বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. ভুবন চন্দ্র বিশ্বাস, নভো এয়ারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মফিজুর রহমান, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের জনসংযোগ মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের হেড অব কার্ডস মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন এবং নেপাল ট্যুরিজম বোর্ডের সিনিয়র ব্যবস্থাপক দিবাকর বিক্রম রানা।

রকিব সিদ্দিকী তাঁর বক্তব্যে বলেন, “বাংলাদেশ মনিটর তার জন্মলগ্ন থেকেই গত ২৭ বছর যাবৎ দেশের সম্ভাবনাময় পর্যটন খাতের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। বিভিন্ন উদ্যোগের পাশাপাশি আমরা ২০০২ সাল থেকে নিয়মিতভাবে ‘ঢাকা ট্রাভেল মার্ট’ আয়োজন করে আসছি। আশা করি, এবারের ঢাকা ট্রাভেল মার্ট পর্যটনশিল্পে আরো গতির সঞ্চার করতে সক্ষম হবে।”

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এবারের পর্যটন মেলায় বাংলাদেশ, নেপাল, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া এবং মালয়েশিয়ার জাতীয় পর্যটন সংস্থাগুলো অংশ নিচ্ছে। স্বাগতিক বাংলাদেশসহ সাতটি দেশের ৪১টি প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা পাঁচটি প্যাভিলিয়ন ও ৭০টি স্টলে তাদের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করছে। অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো মেলা চলাকালীন দর্শনার্থীদের জন্য হ্রাসকৃত মূল্যে বিমান টিকিট, আকর্ষণীয় ট্যুর প্যাকেজসহ বিভিন্ন পণ্য ও সেবা উপস্থাপন করছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস নির্দিষ্ট কিছু আন্তর্জাতিক গন্তব্যে ভ্রমণের ক্ষেত্রে এয়ার টিকিটে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে। নভো এয়ার তাদের সব গন্তব্যের জন্য ১৫ শতাংশ ছাড় দিচ্ছে। ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস তাদের সব অভ্যন্তরীণ গন্তব্যে ১০ শতাংশ এবং আন্তর্জাতিক গন্তব্যে ২০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে। ২৩ মার্চ সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য মেলা উন্মুক্ত থাকবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা