kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

যুক্তরাষ্ট্র-চীন বাণিজ্য বিরোধ বিশ্ব অর্থনীতির জন্য হুমকি

আইসিসিবির ত্রৈমাসিক বুলেটিনের সম্পাদকীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্র ও চীন বিশ্বের দুই বৃহৎ অর্থনীতি। সাম্প্রতিক দেশ দুটির বাণিজ্য বিরোধ বিশ্ব অর্থনীতির জন্য হুমকি হয়ে উঠেছে বলে উল্লেখ করা হয় ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স ইন বাংলাদেশের ত্রৈমাসিক বুলেটিনের সম্পাদকীয়তে।

সাময়িকীর চলতি (অক্টোবর-ডিসেম্বর) সংখ্যায় বলা হয়েছে, সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সির ২০১৭-এর বিশ্ব ফ্যাক্টবুক অনুসারে, তিন বছর ধরে পারচেজিং পাওয়ার প্যারিটিকে ভিত্তি ধরে ২৩.১২ ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি হিসেবে চীন বিশ্বের শীর্ষে রয়েছে। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের দেশগুলো (১৯.৯ ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি) এবং তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র (১৯.৪ ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি)। বিশ্বের এ তিন বৃহৎ অর্থনীতির মোট উৎপাদন ৬২.৪ ট্রিলিয়ন ডলার, যা বিশ্বের মোট অর্থনীতির ৪৯ শতাংশ।

দুই দেশের মধ্যে চলমান শুল্ক বিরোধ বিশ্বের বিনিয়োগকারীদের আত্মবিশ্বাসে নাড়া দিতে পারে উল্লেখ করে এতে আরো বলা হয়, বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র হচ্ছে চীনের সবচেয়ে বড় রপ্তানি বাজার এবং ষষ্ঠ আমদানিকারক দেশ। অন্যদিকে, চীন হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের দ্রুতবর্ধনশীল রপ্তানি বাজার এবং আমদানিকারক দেশ, যা বাণিজ্য বিরোধ বিশ্ব অর্থনীতির জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে।

সাম্প্রতিক সময়ে চীনের প্রকাশ করা হোয়াইট পেপার অনুযায়ী ২০১৭ সালে দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্য ৫৮৩.৭ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে। ট্রাম্প প্রশাসন চীন থেকে আমদানীকৃত পণ্যের ওপর ২৫০ বিলিয়ন ডলার আমদানি শুল্ক আরোপ করে দেশটিকে বাণিজ্য যুদ্ধের জন্য প্ররোচিত করেছে। এর বিপরীতে চীন আমেরিকান ১১০ বিলিয়ন ডলারের পণ্যে আমদানি শুল্ক আরোপ করেছে। বৃহৎ দুই শক্তির মধ্যে চলমান বাণিজ্য বিরোধের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে এর সম্ভাব্য বিরূপ প্রতিক্রিয়া সম্বন্ধে সরকারি এবং বেসরকারি উভয় খাত থেকেই সতর্ক করা হয়েছে। অধিকাংশ এশিয়ার দেশের জন্যই চীন হচ্ছে একক বৃহৎ বাণিজ্য গন্তব্য এবং যুক্তরাষ্ট্র হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক অংশীদার। ফলে দুই দেশের মধ্যে বিবদমান সম্পর্ক এ অঞ্চলের অস্বস্তির কারণ হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা