kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ই-কমার্সে হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নতুন উদ্যোক্তা তৈরিতে ই-কমার্সে ২০২১ সালের মধ্যে এক লাখ প্রশিক্ষণ দিতে চায় ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব)। ই-কমার্স খাতের উন্নয়নে আগামী বাজেটে এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়ার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি। এ ছাড়া ই-কমার্সের প্রশিক্ষণে ভ্যাট-ট্যাক্স সহনীয় করার দাবি জানিয়েছে তারা।

গতকাল সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি উত্থাপন করে ই-ক্যাব। ডিজিটাল কমার্স গেজেট সম্পর্কে আলোচনা এবং জাতীয় বাজেটে ডিজিটাল কমার্স সম্পর্কিত প্রস্তাব বিষয়ে ওই সংবাদ সম্মেলন করে সংগঠনটি।

সংবাদ সম্মেলনে ই-ক্যাবের সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল ওয়াহেদ তমাল জানান, খাতটির উন্নয়নে থোক থেকে এক হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ চান তাঁরা। বিশেষ করে ই-কমার্সের লজিস্টিক ও প্রশিক্ষণে এই অর্থ কাজে লাগানো হবে। ডিজিটাল কমার্স নীতিমালায় ই-কমার্সের যে সংজ্ঞা নির্ধারণ করা হয়েছে, সেটিই আসছে বাজেটে নেওয়ার দাবি তাঁদের।

গত দু-তিন বছর ই-কমার্স খাতের জন্য কোনো আয়কর ছিল না। আগামী পাঁচ বছর আয়কর মৌকুফ চান তাঁরা। এ খাতে যেন কোনো কর আরোপ না হয়। ওয়ালটন, আড়ংসহ অসংখ্য কম্পানি যারা এখন অনলাইনে কেনাবেচা করে। যেখানে কম্পানিগুলোর অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ক্রেডিট কার্ড বা ক্যাশ অন ডেলিভারিতে ক্রেতারা কেনাকাটা করে শুধু সেই অংশে যেন কর অব্যাহতি দেওয়া হয়।

ই-কমার্স খাত গত অর্থবছরে আইটিইএস হিসেবে অন্তর্ভুক্ত ছিল না। এবার বাজেটে খাতটি যেন আইটি ও আইটিইএস হিসেবে রাখা হয় সেই দাবি করছে সংগঠনটি। এ ছাড়া বাড়িভাড়া ও ওয়্যারহাউসে কর মৌকুফ চাওয়াসহ কিছু দাবির কথা তুলে ধরেন ই-ক্যাবের এই নেতা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা